ডাক্তারের ভুল, শিশুটি আলোর মুখ দেখলেও মারা গেলেন মা

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি : সদ্য ভূমিষ্ট, ফুটফুটে নবজাতক। পৃথিবীর আলোর দেখলেও সে তার মাকে আর কখনো দেখতে পাবে না। কারণ, চিকিৎসকের ভুল অস্ত্রোপচারে তা মায়ের মৃত্যু হয়েছে।

কালীগঞ্জ শহরের ধানহাটায় ইসলামিয়া প্রাইভেট হাসপাতালে গতকাল শনিবার রাতে এ ঘটনা ঘটে।

ওই প্রসূতি সোনালী খাতুনের (২১) সিজারিয়ান করেন হাসপাতালের ডা. প্রফুল্ল কুমার মজুমদার।

ঘটনার পরপরই নিহতের স্বজনদের তোপে ক্লিনিক মালিক সুমন ও ডা. প্রফুল্ল গা ঢাকা দিয়েছেন। ঘটনাটি ধামাচাপা দিতে স্থানীয় জনপ্রতিনিধির মাধ্যমে চেষ্টা চালাচ্ছেন বলেও অভিযোগ এসেছে।

নিহতের স্বামী খয়েরতলা গ্রামের হাসান আলী জানান, প্রসব বেদনা উঠলে স্ত্রীকে শনিবার সন্ধ্যায় শহরের নিমতলা বাসস্ট্যান্ডের ইসলামী প্রাইভেট হাসপাতালে ভর্তি করেন। রাত ৯টার দিকে সিজার করেন ডাক্তার প্রফুল্ল কুমার মজুমদার। পরে ক্লিনিক কর্তৃপক্ষ নবজাতক আমাদের কাছে দিয়ে প্রসূতির মৃত্যুর বিষয়টি চেপে যান। শুধু বলেন, প্রসূতির অবস্থা খারাপ। এজন্য এক ঘণ্টা অপারেশন থিয়েটারে রাখতে হবে।

তিনি জানান, এরইমধ্যে ক্লিনিক কর্তৃপক্ষ স্বজনদের না জানিয়ে আধা-ঘণ্টার মধ্যে একটি অ্যাম্বুলেন্স এনে ‘মৃত’ মা এবং স্বজনদের যশোর ২৫০ শয্যা হাসপাতালে স্থানান্তর করে। যশোর হাসপাতালে আনা হলে সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক জানান, অনেক আগেই এই প্রসূতির মৃত্যু হয়েছে।

হাসান আলী বলেন, ‘আমার স্ত্রীকে ডাক্তার প্রতাপ সিজার করবেন বলে কথা হয়েছিল। কিন্তু, ক্লিনিক কর্তৃপক্ষ তাদের ইচ্ছেমতো প্রফুল্লকে দিয়ে করেছেন। এতে অপারেশন থিয়েটারেই আমার স্ত্রীর মৃত্যু হয়েছে।’

অভিযোগের বিষয়ে ইসলামীয়া প্রাইভেট হাসপাতালের মালিক সুমনের ব্যক্তিগত নন্বর ও ডাক্তার প্রফুল্ল মজুমদারের মোবাইলে একাধিকবার ফোন দিলেও রিসিভ হয়নি।

এ বিষয়ে কালীগঞ্জ থানার ওসি ইউনুচ আলী জানান, এখন পর্যন্ত এ ধরনের কোনো অভিযোগ তারা পাননি। পেলে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।