নুসরাত হত্যা : আসামিপক্ষের আইনজীবীকে আ’লীগ থেকে বহিষ্কার

ফেনী প্রতিনিধি :

নুসরাত হত্যা: আসামিপক্ষের আইনজীবীকে আ’লীগ থেকে বহিষ্কার

ফেনীর সোনাগাজীর মাদ্রাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফির গায়ে আগুন দেয়ার মামলায় আসামিদের আইনি সহায়তাদানকারী অ্যাডভোকেট কাজী বুলবুল আহাম্মদ সোহাগকে আওয়ামী লীগ থেকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে।

তিনি স্থানীয় কাজিরবাগ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও ইউপি চেয়ারম্যান।

বৃহস্পতিবার দুপুরে ফেনী সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি করিম উল্যাহ বিকম খবরটি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, সংগঠনবিরোধী কার্যকলাপ ও সোনাগাজী ইসলামিয়া সিনিয়র ফাজিল মাদ্রাসার ছাত্রী নুসরাত জাহান রাফির খুনিদের আইনি সহায়তা দেয়ায় তাকে সাময়িক অব্যাহতি দেয়া হয়েছে। ওই ইউনিয়নের আবদুর রউফকে ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। ইতিমধ্যে এ সিদ্ধান্ত বুলবুলকে জানিয়ে দেয়া হয়েছে।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বুধবার রাতে মারা যায় নুসরাত। এর আগে শনিবার নুসরাতকে গুরুতর অগ্নিদগ্ধ অবস্থায় বার্ন ইউনিটে ভর্তি করা হয়। সোমবার তাকে লাইফ সাপোর্টে নেয়া হয়।

উল্লেখ্য, ৬ এপ্রিল সকালে আলিম পরীক্ষা দিতে সোনাগাজী ইসলামিয়া সিনিয়র ফাজিল মাদ্রাসায় যায় নুসরাত জাহান রাফি। মাদ্রাসার এক ছাত্রী তার বান্ধবী নিশাতকে ছাদের উপর কেউ মারধর করেছে এমন সংবাদ দিলে সে ওই বিল্ডিংয়ের চারতলায় যায়। সেখানে বোরকা পরা ৪/৫ জন তাকে অধ্যক্ষ সিরাজ উদদৌলার বিরুদ্ধে মামলা ও অভিযোগ তুলে নিতে চাপ দেয়। সে অস্বীকৃতি জানালে তারা গায়ে আগুন দিয়ে পালিয়ে যায় তারা।

এ ঘটনায় সোমবার বিকেলে বোরকা পরা ৪ জনসহ অজ্ঞাতদের নামে মামলার পর ওই রাতে এজাহার পরিবর্তন করে অধ্যক্ষ সিরাজ উদদৌলা ও পৌর কাউন্সিলর মুকছুদ আলমসহ ৮ জনের নাম উল্লেখ করে সোনাগাজী মডেল থানায় মামালা করেন নুসরাতের বড় ভাই মাহমুদুল হাসান নোমান।