পতনের বাজারে ৪ কোম্পানিতে বিনিয়োগকারীদের আগ্রহ!

স্পন্দন নিউজ ডেস্ক :  অব্যাহত পতনে টানা ১৪ সপ্তাহের মধ্যে দিয়ে কাটিয়েছে দেশের পুঁজিবাজার। কিন্তু অব্যাহত দর পতনের বাজারের রেকর্ড দরে অবস্থান করছে পুঁজিবাজারের তালিকাভুক্ত ৪ কোম্পানির শেয়ার দর। এমন পরিস্থিতিতে কোম্পানিগুলোর শেয়ারে নতুন বিনিয়োগে সর্তক হতে পরামর্শ দিয়েছেন পুঁজিবাজার সংশ্লিষ্টরা।

জানা যায়, সদ্য সমাপ্ত সপ্তাহে পুঁজিবাজারের লেনদেন হওয়া কোম্পানি ও ফান্ডগুলোর মধ্যে দর কমেছে ১৮২টি কোম্পানি ও ফান্ডের, দর বেড়েছে ১২৪টির ও দর অপরিবর্তিত ছিল ৪৪টি প্রতিষ্ঠানের। এসময় ডিএসই’র সার্বিক মূল্যসূচক আগের সপ্তাহের তুলনায় ৫৫.২৩ পয়েন্ট কমে ৫২৬৬.১৮ পয়েন্টে স্থিতি পেয়েছে। অব্যাহত দর পতনের বাজারেও বিনিয়োগকারীদের আগ্রহের তালিকায় শীর্ষে থাকা কোম্পানিগুলো হলো- স্টান্ডার্ড সিরামিক ইন্ডাস্ট্রিজ, ডেফোডিল কম্পিউটার, বিচ হ্যাচারি ও ফরচুন সুজ লিমিটেড।

স্টান্ডার্ড সিরামিক ইন্ডাস্ট্রিজ

সদ্য সমাপ্ত সপ্তাহে ২৬.৮১ শতাংশ দর বৃদ্ধির মধ্যে দিয়ে রেকর্ড দরে স্থিতি পেয়েছে সিরামিক খাতের এ কোম্পানিটির শেয়ার। বৃহস্পতিবার কোম্পানিটির শেয়ার সর্বনিম্ন ২৪৬ টাকা থেকে সর্বোচ্চ ২৬৯ টাকায় লেনদেন হয়েছে। এর আগে বিগত ৫২ সপ্তাহে বা ১ বছরে কোম্পানিটির শেয়ার সর্বনিম্ন ১০৮ টাকা থেকে সর্বোচ্চ ২৬৯ টাকায় লেনদেন হয়েছে। অর্থাৎ বৃহস্পতিবার বিগত ১ বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ দরে লেনদেন হয়েছে কোম্পানিটির শেয়ার।

১৯৯৬ সালে পুঁজিবাজারের তালিকাভুক্ত কোম্পানিটি ৩০ জুন ২০১৮ সমাপ্ত অর্থ বছরে মাত্র ২ শতাংশ ডিভিডেন্ড ঘোষণা করে “বি” ক্যাটাগরিতে অবস্থান করে। স্বল্পমূলধনী কোম্পানিটির পরিশোধিত মূলধন ৬ কোটি ৪৬ লাখ ১০ হাজার টাকা।

 

আগামী ৩০ এপ্রিল, বিকেল ৩টায় কোম্পানিটির পরিচালনা পর্ষদ সভা অনুষ্ঠিত হবে। সভায় ৩১ মার্চ, ২০১৯ সমাপ্ত সময়ের তৃতীয় প্রান্তিকের অনীরিক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন পর্যালোচনার পাশাপাশি তা প্রকাশ করা হবে।

ডেফোডিল কম্পিউটার

বাজারের অব্যাহত দর পতনের মধ্যেও প্রায় রেকর্ড দর ছুইছুই অবস্থানে রয়েছে তথ্য প্রযুক্তি খাতের ডেফোডিল কম্পিউটারস। বৃহস্পতিবার কোম্পানিটির শেয়ার সর্বোচ্চ ৫৭ টাকায় লেনদেন হয়েছে। যদিও দিনশেষে কোম্পানিটির সমাপনী শেয়ার দর ছিল ৫৫.৩০ টাকা। এর আগে বিগত ৫২ সপ্তাহ বা ১ বছরে কোম্পানিটির শেয়ার দর সর্বনিম্ন ৩০ টাকা থেকে সর্বোচ্চ ৫৮.৩০ টাকায় লেনদেন হতে দেখা গেছে।

২০০ কোটি টাকা অনুমোদিত মূলধনধারী কোম্পানিটির পরিশোধিত মূলধন ৪৯ কোটি ৯১ লাখ ২০ হাজার টাকা।

 

৩০ জুন ২০১৮ সমাপ্ত অর্থবছরে কোম্পানিটি ১২ শতাংশ ক্যাশ ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেছিল। ওই সময় কোম্পানিটির ১০ কোটি ৯০ লাখ ৫০ হাজার মুনাফা হয়েছিল।

এদিকে, চলতি বছরের দ্বিতীয় প্রান্তিক শেষে কোম্পানিটির সর্বমোট সমন্বিত আয় হয়েছে ৪ কোটি ১৭ লাখ ৫০ হাজার টাকা। আগামী ২৯ এপ্রিল, বিকেল ৩টায় কোম্পানিটির পরিচালনা পর্ষদ সভা অনুষ্ঠিত হবে। সভায় ৩১ মার্চ, ২০১৯ সমাপ্ত সময়ের তৃতীয় প্রান্তিকের অনীরিক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন পর্যালোচনার পাশাপাশি তা প্রকাশ করা হবে।

বিচ হ্যাচারি

বৃহস্পতিবার ৬.১৩ শতাংশ বা ১.৩ টাকা শেয়ার দর বাড়ার মধ্যে দিয়ে রেকর্ড দরের কাছাকাছি অবস্থান করেছে বিচ হ্যাচারির শেয়ার দর। খাদ্য ও আনুষাঙ্গিক খাতের তালিকাভুক্ত কোম্পানিটির বিগত এক বছরের সর্বোচ্চ দর ২৩ টাকা। বৃহস্পতিবার তা ২২.৫০ টাকায় সর্বোচ্চ লেনদেন হতে দেখা গেছে। যদিও দিনশেষে কোম্পানিটির সমাপনী শেয়ার দর ছিল ২২.২০ টাকা।

আগামী ৩০ এপ্রিল, বিকেল ৩টায় কোম্পানিটির পরিচালনা পর্ষদ সভা অনুষ্ঠিত হবে। সভায় ৩১ মার্চ, ২০১৯ সমাপ্ত সময়ের তৃতীয় প্রান্তিকের অনীরিক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন পর্যালোচনার পাশাপাশি তা প্রকাশ করা হবে।

 

ফরচুন সুজ

চামড়া খাতের তালিকাভুক্ত কোম্পানিটির শেয়ারেও বিনিয়োগকারীদের ব্যাপক আগ্রহ দেখা গেছে। পতনের বাজারেও অব্যাহত উত্থানে বৃহস্পতিবার কোম্পানিটির শেয়ার সর্বোচ্চ ৩৯.৪০ টাকায় লেনদেন হয়েছে। এর আগে গত এক বছরে কোম্পানিটির শেয়ার সর্বোচ্চ ৪০.৪০ টাকায় লেনদেন হতে দেখা গেছে।

২০১৬ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত কোম্পানিটির অনুমোদিত মূলধন ১৫০ কোটি টাকা, কোম্পানিটির পরিশোধিত মূলধন ১২৪ কোটি ৯৩ লাখ ৬০ হাজার টাকা।

আগামী ২৮ এপ্রিল, বিকেল ৩টা ৩০ মিনিটে কোম্পানিটির পরিচালনা পর্ষদ সভা অনুষ্ঠিত হবে। সভায় ৩১ মার্চ, ২০১৯ সমাপ্ত সময়ের তৃতীয় প্রান্তিকের অনীরিক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন পর্যালোচনার পাশাপাশি তা প্রকাশ করা হবে।