বয়স জালিয়াতি করে বাল্যবিয়ে, মহিলা কাউন্সিলরের দণ্ড

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি::

স্কুলের ভুয়া প্রশংসাপত্র ও জন্মনিবন্ধন দিয়ে বয়স জালিয়াতি করে অপ্রাপ্ত বয়স্ক এক কিশোরীকে বিয়ে দেওয়ার অপরাধে ঝিনাইদহ পৌরসভার ওয়ার্ড কাউন্সিলর বুলবুলি খাতুনকে পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা করেছেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও ঝিনাইদহ সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার শাম্মী ইসলাম।

সোমবার দুপুরে এক অভিযোগের প্রেক্ষিতে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের দপ্তরে এই জরিমানা করা হয়।

জানা গেছে, গত ২৭ এপ্রিল শহরের কাঞ্চননগর স্কুলে পড়ুয়া পবহাটী গ্রামের এক ছাত্রীর শৈলকুপার উমেদপুর হাই স্কুলের ভুয়া প্রশংসাপত্র দিয়ে ঝিনাইদহ পৌরসভা থেকে জন্ম নিবন্ধন সনদ নেওয়া হয়। এই নিবন্ধন ফরমে সাক্ষর করেন ঝিনাইদহ পৌরসভার সংরক্ষিত মহিলা ওয়ার্ড কাউন্সিলর বুলবুলি খাতুন। ওই জন্মসনদের ভিত্তিতে কিশোরীকে কালীগঞ্জ উপজেলার সুন্দরপুর গ্রামের শওকত আলীর ছেলে রাশেদুল ইসলামের সাথে বিয়ে দেওয়া হয়।

বয়স জালিয়াতির বিষয়টি জানাজানি হলে সোমবার দুপুরে সংশ্লিষ্টদের ঝিনাইদহ সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসারের অফিসে তলব করা হয়।

ঘটনাস্থলে বিয়ের কাজী মাওলানা আনোয়ার হোসেন, ওয়ার্ড কাউন্সিলর বুলবুলি খাতুন, পৌরসভার স্যানিটারি ইন্সপেক্টর শংকর নন্দি ও উমেদপুর হাইস্কুলের প্রধান শিক্ষকসহ বর-কনের অভিভাবকরা উপস্থিত হন।

শুনানীকালে শৈলকুপার উমেদপুর হাইস্কুলের প্রধান শিক্ষক তার স্কুলের প্যাডে দেওয়া প্রশংসাপত্রটি ভুয়া বলে চিহ্নিত করেন। ফলে ভুয়া প্রশংসাপত্রের বিনিময়ে নেওয়া ঝিনাইদহ পৌরসভার জন্ম সনদও ত্রুটিপূর্ণ বলে বিবেচিত হয়। ফেঁসে যান কাউন্সিলর বুলবুলি খাতুন।

এ ঘটনায় বাল্যবিবাহ নিরোধ আইন ১৭ এর ৮ ধারা মোতাবেক দোষী সাব্যস্ত করে ওয়ার্ড কাউন্সিলর বুলবুলি খাতুনকে নগদ পাঁচ হাজার টাকা অর্থ দণ্ড করা হয়।

এ সময় ঝিনাইদহ সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার শাম্মী ইসলাম বিয়ের সাথে সংশ্লিষ্ট সকলকে ভবিষ্যতে এ ধরনের অপরাধমূলক কাজ থেকে বিরত থাকার জন্য নির্দেশ দেন।