ছয়তলা ভবনের আগুন নেভাতে অক্ষম যশোর ফায়ার সার্ভিস

::মিরাজুল কবীর টিটো::
পাঁচতলার অধিক উচ্চ ভবনে অগ্নিনির্বাপনে অক্ষম যশোর ফায়ার সার্ভিস। আধুনিক সরঞ্জাম না থাকায় এ অক্ষমতা প্রকাশ করেছেন ফায়ার সার্ভিসের সহকারী পরিচালক ওয়াদুদ হোসেন। শহর ঘুরে দেখা গেছে, বর্তমানে যশোর শহরে পাঁচতলার অধিক ভবনের সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে।

সর্বোচ্চ সতেরতলা পর্যন্ত ভবন রয়েছে এ শহরে। এসব ভবন ব্যবহৃত হচ্ছে গুরুত্বপূর্ণ কাজে। রাজধানীর একাধিক অগ্নিকাণ্ডের পর এসব ভবনের অগ্নি নিরাপত্তা ব্যবস্থা ভাবাচ্ছে ফায়ার সার্ভিস বিভাগকে।

দুর্ঘটনায় এসব ভবনের নিজস্ব অগ্নি নির্বাপন ব্যবস্থা যদি কার্যকর না হয় তবে ফায়ার সার্ভিসের পক্ষে আগুন নেভানো কোনোভাবেই সম্ভব হবে না। ফায়ার সার্ভিস কর্মকর্তারা বলছেন, বেশিরভাগ উচ্চ ভবনের প্রবেশ মুখে রয়েছে সরু গলি। যা দিয়ে পানির গাড়ি প্রবেশ করানো সহজ হবে না। পাঁচতলার অধিক বহুতল ভবনে অগ্নিনির্বাপনের জন্য অতি আবশ্যক বিশেষ মই, হাইড্রোলিক মই, লাইটিং ইউনিট নেই ফায়ার সার্ভিসের যশোর স্টেশনে। বহুতল ভবনে অগ্নিকাণ্ড ঘটলে সাধারণ মানুষের মত তাকিয়ে দেখা ছাড়া কিছুই করার থাকবে না। ফায়ার সার্ভিসের যশোর স্টেশনে বর্তমানে অগ্নিনির্বাপনের জন্য ৪টি পরিবহন আছে। কর্মরত আছেন ৪৫জন কর্মী।

এ ব্যাপারে যশোর ফায়ার সার্ভিসের সহকারী পরিচালক ওয়াদুদ হোসেন জানান, একদিকে যেমন তাদের আধুনিক সরঞ্জাম নেই। অন্যদিকে বহুতল ভবন এমন জায়গায় তৈরি নির্মাণ করা হয়েছে যার প্রবেশ মুখে রয়েছে সরু গলি। সেখানে ফায়ার সার্ভিসের পানি ভরা পরিবহন প্রবেশ করানো যাবে না। দূর থেকে পাইপের মাধ্যমে পানি দিতে হবে। বর্তমানে আমাদের সক্ষমতা ভবনের পাঁচতলা পর্যন্ত। সার্বিক দিক বিবেচনা করলে যশোরের বহুতল ভবনগুলো অগ্নি নির্বাপন ব্যবস্থা ঝুঁকিপূর্ণ।