‘বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়তে পরিশ্রম করে যাচ্ছেন শেখ হাসিনা’

::শেখ কাজিম উদ্দিন, বেনাপোল::
৮৫ যশোর-১ (শার্শা) আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ শেখ আফিল উদ্দিন বলেছেন আমরা যেমন আত্মশুদ্ধির জন্য পবিত্র রমজান মাসে ৩০টি রোজা পালন করে থাকি। ভোর বেলায় সেহেরি আর সারাদিন পর সন্ধ্যার সময় ইফতারের মাধ্যমে আমাদের একেকটি রোজা পালন হয়। এর মধ্যবর্তী সময়ে আমরা গোপনেও কোন কিছু পানাহার করি না। তার একটি মাত্র কারণ, আমরা ভাবি কেউ না দেখলেও মহান আল্লাহ দেখবেন। তাই, এই সিয়াম সাধনার মধ্যে যতো তৃষ্ণাই লাগুক না কেন, আর যতো ক্ষুধা লাগুক না কেন, একমাত্র আল্লাহর ভয়ে সততার মাধ্যমে আমরা ইফতারির আগ মুহুর্ত পর্যন্ত কোন ধরণের পানাহার করি না। তাই প্রত্যেক দিনটাকে যদি আমরা সিয়াম সাধনার দিন মনে করি আর সততার মাধ্যমে পথ চলি তাহলে খুব দ্রুত সময়ের মধ্যে আমরা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ডিজিটাল বাংলাদেশ আর বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলাদেশ গড়তে সক্ষম হবো।

শনিবার বিকেলে বেনাপোল পৌর আওয়ামী লীগ আয়োজিত মাধ্যমিক বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে অনুষ্ঠিত বিশাল এক ইফতার ও দোয়া অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে একথা বলেন তিনি।

বেনাপোল পৌর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আলহাজ এনামুল হক মুকুলের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক আলহাজ নাসির উদ্দিনের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত ইফতার ও দোয়া অনুষ্ঠানে শেখ আফিল উদ্দিন এমপি আরো বলেন, একমাত্র বাংলাদেশকে ভালোবাসতে গিয়ে বঙ্গবন্ধু পরিবারকে উন্নয়ন বিরোধী শক্তির কাছে জীবন দিতে হয়েছিল। একমাত্র আল্লাহর অশেষ কৃপায় এদেশকে রক্ষার জন্য বেঁচে আছেন কেবল বঙ্গবন্ধুর দু’কন্যা। একজন বাংলাদেশের ডিজিটাল রুপদানকারী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও তাঁর বোন শেখ রেহেনা। তাদেরও আর্থিক কোন চাওয়া পাওয়া নেই এদেশের পরে। তারা চাইছেন বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশকে সত্যিকারের রুপ দিতে। তাই, দিন রাত পরিশ্রম করে বঙ্গবন্ধু কন্যা তথা বাংলাদের সফল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সততার মাধ্যমে বাংলাদেশকে একটি সুখী সমৃদ্ধিময় উন্নয়নশীল রাষ্ট্রে ধাবিত করেছেন। আমরা এখন উন্নয়নের পথযাত্রী। কেবল আমরা এই পবিত্র সিয়াম সাধনার মতো সততা দেখিয়ে চলতে পারলে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলায় পৌছাতে সময়ের ব্যাপার মাত্র।

এ সময় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন শার্শা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা সিরাজুল হক মঞ্জু, সাধারণ সম্পাদক আলহাজ নুরুজ্জামান, যুগ্ম সম্পাদক ও যশোার জেলা পরিষদের সদস্য অধ্যক্ষ ইব্রাহিম খলিল, কোষাধ্যক্ষ আলহাজ ওয়াহিদুজ্জামান, বেনাপোল পোর্ট থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শেখ আবু সালেহ মাসুদ করিম, (তদন্ত) আলমগীর হোসেন, যশোর জেলা আওয়ামীলীগের শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক আসিফ-উদ-দৌলা অলোক, শার্শা উপজেলা যুবলীগের সভাপতি ও যশোর জেলা পরিষদের সদস্য অহিদুজ্জামান অহিদ, বেনাপোল ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ বজলুর রহমান, শার্শা সদর ইউপি চেয়ারম্যান সোহরাব হোসেন, পুটখালী ইউপি চেয়ারম্যান হাদিউজ্জামান, শার্শা উপজেলা বাস্তহারালীগের সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ আলী, বেনাপোল পৌর আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি আলী কদর সাগর, যুগ্ম সম্পাদক মহাতাব উদ্দিন, সাংগঠনিক সম্পাদক মনিরুজ্জামান ঘেনা, প্রচার সম্পাদক আকবার আলী, যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক আহাদুজ্জামান বকুল, জসিম উদ্দিন, বেনাপোল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি তাহাজ্জেল হোসেন, সাধারণ সম্পাদক সাইদুজ্জামান শহীদ, পৌর সেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি জুলফিকার আলী মন্টু, সাধারণ সম্পাদক কামাল হোসেন, ছাত্রলীগের সভাপতি আল মামুন জোয়াদ্দার, সাধারণ সম্পাদক তৌহিদুর রহমান, সাবেক সহ সভাপতি আল ইমরান, সাংগঠনিক সম্পাদক আল আমিন রুবেলসহ আওয়ামী লীগের সকল সহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মী ও স্থানীয় সুধী সমাজের নেতৃবৃন্দ।