শিক্ষার্থী পেতে বেসরকারি কলেজের নানা প্রলোভন

::মিরাজুল কবীর টিটো::

একাদশ শ্রেণিতে শিক্ষার্থী পেতে মরিয়া হয়ে উঠেছে যশোরের বেসরকারি কলেজগুলো। ইতোমধ্যে কলেজের শিক্ষক কর্মচারীরা বাড়িতে বাড়িতে ধর্ণা দিচ্ছেন। সেই সাথে ভর্তি সংক্রান্ত পোস্টার লাগানো হচ্ছে বিভিন্ন স্থানে। তাতে শিক্ষার্থীদের সুন্দর পাঠদানের ব্যবস্থাসহ নানা বৈশিষ্টের কথা উল্লেখ করা থাকছে। কোনো কোনো প্রতিষ্ঠান টিউশন ফি মাফ, বই পত্রিকা ফ্রিসহ অন্যান্য সুযোগ সুবিধা দেয়ার ঘোষণা দিচ্ছে।

একাদশ শ্রেণিতে ভর্তি হতে শিক্ষার্থীদের অনলাইনের মাধ্যমে আবেদন করতে হবে। বেশির ভাগ শিক্ষার্থী আবেদন করে যশোরের সরকারি কলেজসহ কিছু নামি দামি কলেজে। ফলে বেসরকারি কলেজে ভর্তিতে গতবছর একাদশ শ্রেণিতে অর্ধেক আসন খালি ছিল। এ বছর যাতে এ অবস্থার সৃষ্টি না হয় এজন্য শিক্ষার্থী ভর্তিতে মরিয়া হয়ে প্রচার প্রচারণায় ব্যস্ত হয়ে পড়েছে বেসরকারি কলেজ কর্তৃপক্ষ। কয়েকটি বেসরকারি কলেজের লিফলেট ও পোস্টার লোভনীয় অফার দেয়া হচ্ছে।

এমএসটিপি গার্লস স্কুল এন্ড কলেজের ভর্তির বিষয়ে প্রতিষ্ঠান থেকে বিনামূল্যে ছাত্রীদের সহায়তা করা হবে। হামিদপুর আল হেরা কলেজ প্রচারনায় উল্লেখ করেছে তাদের নিজস্ব যাতায়াতের ব্যবস্থা রয়েছে। উপশহর মহিলা কলেজে প্রচারণায় উল্লেখ করা হয়েছে জাতীয় পর্যায়ে কলেজ ব্যাংকিংয়ে পঞ্চম ও যশোরের শ্রেষ্ঠ বিদ্যাপাঠ। আরো লেখা রয়েছে সুশৃঙ্খল ও সম্পূর্ণ রাজনীতি মুক্ত পরিবেশ। মাসিক ও বার্ষিক পরীক্ষায় মেধা তালিকায় স্থান প্রাপ্ত ছাত্রীদের পুরস্কারের ব্যবস্থাসহ নানা বৈশিষ্ট্য।

মির্জা আব্দুল্লাহ বেগ আলিফ এ বছর এসএসসি পাস করেছে। সে জানায় একাদশ শ্রেণিতে ভর্তির জন্য আগে সরকারি কলেজে আবেদন করবে। যেখানে যদি ভর্তি হওয়ার সুযোগ না পায়। পরে অন্য কলেজে ভর্তি হওয়ায় কথা চিন্তা করবে। একই কথা জানায় তানভীর মাহমুদ ঐশী রায়সহ এসএসসি পাসকৃত শিক্ষার্থীরা। তবে গ্রাম অঞ্চলের কলেজগুলোর এলাকার এসএসসি পাস শিক্ষার্থীদের বাড়িতে বাড়িতে যাচ্ছে। নতুন কলেজগুলো বিনাবেতনে পড়াসহ নানা সুবিধার ঘোষণা দিচ্ছে। কোনো কোনো প্রতিষ্ঠান ফ্রি থাকা খাওয়ার ব্যবস্থা করা হবে বলে প্রচার করছে।