অস্ত্রোপচারের পর ভালো আছেন বর্ষীয়ান অভিনেত্রী তনুজা

স্পন্দন বিনোদন ডেস্ক : পেটের পীড়া নিয়ে হাসপাতালে যেতে হয়েছে বলিউডের বর্ষীয়ান অভিনেত্রী তনুজাকে (৭৫)। হঠাৎ তলপেটে অস্বাভাবিক ব্যথা অনুভব করলে মঙ্গলবার (২৮ মে) রাতে মুম্বাইয়ের লীলাবতী হাসপাতালে তাকে ভর্তি করা হয়।

জরুরী ভিত্তিকে বৃহস্পতিবার (৩০ মে) তার ক্ষুদ্রান্ত্রের উপস্থলিপ্রদাহে অস্ত্রোপচার করা হয়। অস্ত্রোপচারের পর এখন তিনি আগের চেয়ে ভালো আছেন।

হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের বরাত দিয়ে ভারতীয় সংবাদ মাধ্যম জানায়, অস্ত্রোপচারে পর তনুজা ভালো আছেন এবং এখন তার শারীরিক অবস্থা স্থিতিশীল রয়েছে। তাকে আরও এক সপ্তাহ চিকিৎসার জন্য লীলাবতী হাসপাতালে থাকতে হতে পারে।

তনুজার মেয়ে বলিউডের নন্দিত অভিনেত্রী কাজলের শ্বশুর তথা বলিউডের খ্যাতনামা অ্যাকশন ডিরেক্টর ভীরু দেবগন তিন দিন আগে মারা গিয়েছেন। আর এর একদিন পরই মাকে নিয়ে কাজলকে মুম্বাইয়ের লীলাবতী হাসপাতালে হাজির হতে দেখা যায়।

তনুজা এক সময়ের বলিউডের বিখ্যাত অভিনেত্রী। তিনি বেশ কিছু বাংলা সিনেমাতেও অভিনয় করেছেন।

১৯৬৩ সালে উত্তম কুমারের বিপরীতে ‘দেওয়া নেওয়া’ ছিল তার অভিনীত প্রথম বাংলা সিনেমা। এরপর কলকাতার বর্ষীয়ান অভিনেতা সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের সঙ্গে ‘তিন ভুবনের পারে’ ও ‘প্রথম কদম ফুল’ সিনেমায় তাকে দেখা গিয়েছে।

কিছুদিন আগে ‘সন অফ সর্দার’ এবং ‘অ্যা ডেথ ইন দ্য গুঞ্জ’ সিনেমাতেও তনুজা অভিনয় করেছেন।

২০১৭ সালে আরম্ভ নামে একটি টেলিভিশন শোতে অল্প সময়ের জন্য তনুজা অভিনয় করেন। নির্মাতা কুমার সেন সমর্থ এবং অভিনেত্রী সুবর্ণা সমর্থের মেয়ে তনুজার জন্ম হয়েছিল ১৯৪৩ সালে। তার বড় বোন নূতনও একজন অভিনেত্রী ছিলেন।

১৯৭৪ সালে নির্মাতা সমু মুখার্জির সঙ্গে ঘর বাঁধেন তনুজা। তাদের দুই মেয়ে কাজল এবং তানিশাও অভিনেত্রী।

তনুজা অভিনীত সর্বশেষ বাংলা সিনেমা ‘সোনার পাহাড়’। এতে তার সহশিল্পী ছিলেন যীশু সেনগুপ্ত ও পরমব্রত চট্টোপাধ্যায়।