যশোরে কুখ্যাত হিটার নয়নের ওপর বোমা হামলাকারী সানি গণপিটুনিতে নিহত

নিজস্ব প্রতিবেদক>
যশোর শহরের শংকরপুর এলাকার ত্রাস কুখ্যাত শাহেদ হোসেন ওরফে হিটার নয়নের (৩৫) উপর বোমা হামলার ঘটনায় সন্ত্রাসী সানি (৩২) গণপিটুনিতে নিহত হয়েছে। গণপিটুনির শিকার আরেকজন আনন্দ (২৮) যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। মঙ্গলবার রাত ৮টার দিকে শংকরপুর বাস টার্মিনালের পূর্ব পাশে শহিদের বাড়ির কাছে ঘটনাটি ঘটে। নিহত সানি শংকরপুর মুরগির ফার্ম এলাকার ধনু মিয়ার ছেলে। পুলিশ বলছে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে এই খুন জখমের ঘটনা ঘটেছে।
স্থানীয়রা জানিয়েছেন, ঘটনার রাতে শংকরপুর কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনালের বটতলায় দলবল নিয়ে বসে ছিল শংকরপুর গোলপাতা মসজিদ এলাকার ফারুক হোসেনের ছেলে হিটার নয়ন। এসময় সানি ও শংকরপুর মুরগির ফার্ম এলাকার অশোকের ছেলে আনন্দের নেতৃত্বে দুর্বৃত্তরা হিটার নয়নকে লক্ষ্য করে বোমা হামলা করে। এতে হিটার নয়ন জখম হয়। এই ঘটনার নয়নের ক্যাডার ও শ্রমিকেরা ধাওয়া করে শহিদের বাড়ির কাছ থেকে সানি ও আনন্দকে ধরে গণপিটুনি দেয়।
যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক কল্লোল কুমার সাহা জানান, প্রথমে হাসপাতালে আনা হয় নয়নকে। বোমার স্পিলিন্টারে আঘাতে তার পা জখম হয়েছে। তাকে ভর্তি করে ওয়ার্ডে পাঠানো হয়। কিছু সময় পরেই আনা হয় সানি ও আনন্দকে। তাদেরও ভর্তি করে সার্জারী ওয়ার্ডে পাঠিয়ে দেয়া হয়। ওয়ার্ডে দায়িত্বরত চিকিৎসক ওয়াহিদুজ্জামান আজাদ জানান, ভর্তির কিছু সময় পর চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায় সানি। ভর্তির সময় তার অবস্থা আশংকাজনক ছিল।
এদিকে, হাসপাতালের একটি সূত্র জানিয়েছে, পুলিশের চোখ ফাঁকি দিয়ে হিটার নয়ন ওয়ার্ড থেকে পালিয়ে গেছে। আনন্দ পালিয়ে যাওয়ার সময় পুলিশের হাতে আটক হয়। যশোর কোতোয়ালি মডেল থানার এসআই মাসুম বিল্লাহ জানান, খবর পাওয়ার তিনি ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থলে যান। সেখানে তিনটি বোমার বিস্ফোরণ ঘটে বলে প্রাথমিকভাবে জানতে পেরেছেন। ঘটনাস্থল থেকে ২০টি জালের কাঠি উদ্ধার করা হয়েছে।
থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) অপূর্ব হাসান হাসপাতালে সাংবাদিকদের জানান, আধিপত্য বিস্তার করা নিয়ে একটি পক্ষের সানিসহ তার ক্যাডাররা অপরপক্ষের হিটার নয়নের উপর বোমা হামলা চালায়। বোমায় নয়ন জখম হয়েছে। আর প্রতিপক্ষের গণপিটুনিতে নিহত হয়েছে সানি। ওসি জানান, হিটার নয়নের বিরুদ্ধে একাধিক হত্যাসহ বিভিন্ন মামলা রয়েছে। আর নিহত সানির বিরুদ্ধে দুইটি হত্যা মামলা আছে। তারা দুইজনই কুখ্যাত সন্ত্রাসী। এক প্রশ্নের উত্তরে ওসি জানান, হিটার হাসপাতাল থেকে পালিয়ে যায়নি। তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় পাঠানো হয়েছে।