আদালতের নির্দেশ অমান্য করায় শিল্পী সংঘের কার্যক্রমে স্থগিতাদেশ

সেই সঙ্গে সাতদিনের মধ্যে কারণ দর্শানোর নোটিশও জারি করা হয়েছে। ঢাকা জেলার সহকারী জজ দ্বিতীয় আদালতের বিচারক মো. আশিকুজ্জামান এ আদেশ দেন।

অভিনয় শিল্পী সংঘের নির্বাচন অনুষ্ঠিত ও নবনির্বাচিত কমিটির কার্যক্রমের ওপর অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞা চেয়ে রোববার (২৩ জুন) আদালতে অভিযোগ করেন শেখ মো. এহসানুর রহমান, আবদুল্লাহ রানা ও নূর মুহাম্মদ রাজ্য। তিনজন বাদী স্বাক্ষরিত পিটিশনটিতে অভিনয় সংঘের সাবেক সভাপতি শহিদুল আলম সাচ্চুকে ১নং করে, নির্বাচন পরিচালনা কমিটির ছয়জনসহ মোট আটজনকে বিবাদী করা হয়েছে। এছাড়া বিবাদী করা হয়েছে উপ-পরিচালক জেলা সমাজকল্যাণ অফিসকেও। মামলা নং- ২২০ (২০১৯)।

বিবাদীরা হলেন শিল্পী সংঘের বিদায়ী কমিটির সভাপতি শহিদুল আলম সাচ্চু, সাধারণ সম্পাদক আহসান হাবিব নাসিম, সদ্য অনুষ্ঠিত হওয়া নির্বাচন কমিশনার খায়রুল আলম সবুজ, মাসুম আজিজ ও বৃন্দাবন দাস। আরও আছেন কেএস ফিরোজ, লাকী ইনাম ও নরেশ ভূইয়া।

এছাড়া গত ২৩ জুন আলাদা করে শেখ মো. এহসানুর রহমান এ বিষয়ে সমাজসেবা অধিদফতরের উপ-পরিচালক রকনুল হককে কোর্ট অর্ডার ছাড়াও ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য আলাদা করে আবেদন করেছেন।

নোটিশ প্রাপ্তির সাতদিনের মধ্যে আনীত অভিযোগের জবাব দিতে বলা হয়েছে। অন্যথায় একতরফা শুনানি করে স্থায়ী নিষেধাজ্ঞা জারি করার বিধান রয়েছে বলে জানান বাদীপক্ষের আইনজীবী।

adalot11

এদিকে আদালতের আদেশ অমান্য করে শুক্রবার (২১ জুন) নির্বাচন অনুষ্ঠিত হলো তার আইনি প্রতিকার চাওয়া হবে বলেও পিটিশনে জানিয়েছেন আব্দুল্লাহ রানা।

উল্লেখ্য, গত বুধবার (১৯ জুন) সিনিয়র সহকারী জজ আদালত, ঢাকা, তিনজন বাদী হয়ে অভিনয় শিল্পী সংঘের বেশকিছু অনিয়মের অভিযোগ এনে নির্বাচন স্থগিতের আবেদন করেন। আদালত অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে নির্বাচনে স্থগিতাদেশ দিয়ে কেন নির্বাচন বন্ধে স্থায়ী নিষেধাজ্ঞা জারি করা হবে না তা জানতে চেয়ে সাতদিনের মধ্যে জবাব চেয়ে অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞা জারি করেন।

আদালতের আদেশ অমান্য করে ২১ জুন শুক্রবার শিল্পকলা একাডেমিতে শিল্পী সংঘের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে সভাপতি পদে অভিনেতা শহীদুজ্জামান সেলিম ও সাধারণ সম্পাদক আহসান হাবীব নাসিম নির্বাচিত হন।

নির্বাচিত কমিটি ২৪ জুন (সোমবার) রাতে শপথ গ্রহণ করে। নির্বাচিতদের শপথ পাঠ করান প্রধান নির্বাচন কমিশনার খায়রুল আলম সবুজ।