সেই নারী নরসুন্দরকে জমি কিনে দিতে চান প্রতিমন্ত্রী ডা. এনামু

 

স্পন্দন নিউজ ডেস্ক : ঝালকাঠির সেই ‘হার না মানা’ নারী নরসুন্দর (নাপিত) শেফালী রানী শীলের পাশে দাঁড়ালেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. এনামুর রহমান এমপি। কাঁঠালিয়া উপজেলার প্রত্যন্ত এলাকা দোগনা বাজারের একমাত্র নরসুন্দর শেফালী রানী শীল। প্রায় দুই যুগ ধরে এলাকার লোকজনের চুল কাটছেন তিনি।

শেফালীকে বাড়ি করে দেয়ার ঘোষণা দিয়েছেন প্রতিমন্ত্রী। জেলা প্রশাসনকে নির্দেশ দিয়েছেন খাসজমি বন্দোবস্ত দেয়ার জন্য। সেখানেই মন্ত্রণালয় দ্রুত সময়ের মধ্যে নির্মাণ করে দেবে দুর্যোগ সহনীয় বাড়ি।

আগামী সোমবার মন্ত্রণালয়ের প্রতিনিধিদের নিয়ে শেফালীর পরিস্থিতি সরেজমিনে দেখতে যাওয়ার কর্মসূচির কথাও জানিয়েছেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. এনামুর রহমান এমপি।

তিনি বলেন, প্রত্যন্ত গ্রামে একজন নারীর জন্য এমন একটি পেশা বেছে নেয়া বেশ কঠিন ও চ্যালেঞ্জের। তা সত্ত্বেও তিনি প্রথাগত পেশার ধারণা ভেঙে জীবন ও জীবিকার তাগিয়ে নাপিতের কাজ বেছে নিয়েছেন। কেবল তাই নয়, এর বাইরে দোকানে দোকানে পানি সরবরাহ করে সেই অর্থ দিয়ে সন্তানদের সুশিক্ষায় শিক্ষিত করার চেষ্টা করছেন।

এটাই আমার কাছে অসাধারণ ও প্রেরণাদায়ক মনে হয়েছে।

 

তিনি আরও বলেন, ফেসবুকে ‘হার না মানা’ নারী নাপিত শেফালী রানী শীলের ওপর প্রতিবেদন দেখে জেলা প্রশাসনকে নির্দেশ দিয়েছি তার পাশে দাঁড়াতে। প্রাথমিকভাবে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে স্থানীয় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শেফালীকে ১০ হাজার টাকা নগদ বরাদ্দ দিয়েছেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, আমাদের নীতিমালা অনুযায়ী সেই সব দুস্থ মানুষের মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে বাড়ি নির্মাণ করে দেই, যাদের অন্তত দুই শতাংশের মতো জায়গা আছে। আমি খোঁজ নিয়ে জেনেছি, শেফালী রানী শীলেও সেটাও নেই। সিদ্ধান্ত নিয়েছি যদি সরকারিভাবে জায়গা সুবিধাজনক স্থানে পাওয়া না যায়; তবে আমি নিজেই ব্যক্তিগত তরফ থেকে সেই জায়গা কিনে দেব। আমি নিজেই তার বাড়িতে যাব। কারণ শেফালী রানী শীলরা নারীর ক্ষমতায়নের প্রতীক। তাকে নিজে গিয়ে অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা জানাবো তার সাহসী জীবন সংগ্রামের জন্য।

এর আগে শনিবার সকালে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. এনামুর রহমান তার ফেসবুক পেজ থেকে ‘হার না মানা’ নারী নাপিত শেফালী রানী শীলকে সহায়তা করার বিষয়ে পর পর দুটো পোস্ট শেয়ার করেন।

এ প্রসঙ্গে জাগো নিউজ থেকে যোগাযোগ করা হয় শেফালী রানী শীলের সঙ্গে। তিনি বলেন, বিকেল ৫টার পর প্রশাসনের অনেক লোক এসে আমার বাড়ি-ঘর দেখে গেছেন। আগামীকাল আবার আসবেন বলে জানিয়েছেন। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আকন্দ মোহাম্মদ ফয়সাল উদ্দীন ১০ হাজার টাকা দিয়েছেন বলেও জানান তিনি।

jagonews

এক বিষয়ে কথা বলতে জাগো নিউজ থেকে কাঁঠালিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আকন্দ মোহাম্মদ ফয়সাল উদ্দীনের অফিসিয়াল নম্বরে কয়েকবার কল দিলেও বন্ধ পাওয়া গেছে।

প্রসঙ্গত, ২০১৮ সালের ২০ জানুয়ারি শেফালী রানীকে নিয়ে অনলাইন নিউজপোর্টাল জাগো নিউজে  শিরোনামে একটি সংবাদ প্রকাশ হয়। এরপর গতকাল ২৭ জুন তাকে নিয়ে একটি সংবাদ প্রকাশ করে বিবিসি। সেই সংবাদের পরিপ্রেক্ষিতে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. এনামুর রহমান এমপি তার পাশে দাঁড়ানোর আশ্বাস দিয়েছেন।