মিলার আগাম জামিন

 

স্পন্দন বিনোদন ডেস্ক :বিচারপতি ওবায়দুল হাসান ও বিচারপতি এসএম কুদ্দুস জামানের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ এক জামিন আবেদনের শুনানি শেষে তার জামিন মঞ্জুর করেন। সেই সঙ্গে আট সপ্তাহ পর তাকে নিম্ন আদালতে আত্মসমর্পণ করারও নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

মিলার আইনজীবী দেবাশীষ ভট্টাচার্য তার জামিনের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

গত ৪ জুন রাজধানীর উত্তরা পশ্চিম থানায় মিলার বিরুদ্ধে মামলাটি করা হয়। ওই মামলায় হাইকোর্টে আগাম জামিন নিলেন মিলা।

এর আগেও গত ২১ এপ্রিল ঢাকার একটি আদালতে মিলার বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা করেন পারভেজ সানজারি।

ডিভোর্স হলেও নানামুখী ঝামেলায় জড়িয়ে আছেন মিলা। সাবেক স্বামীর বিরুদ্ধে করা মামলায় দেড় বছর ধরে সাক্ষী দিতে না যাওয়ায় গত ২৩ জুন তার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-৯ ঢাকা।

প্রসঙ্গত, ২০১৭ সালের ৫ অক্টোবর রাজধানীর উত্তরা পশ্চিম থানায় মারধর ও যৌতুকের অভিযোগে মিলা বাদী হয়ে তার সাবেক স্বামী পারভেজ সানজারির নামে মামলা করেন। মামলার পরই সানজারিকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

মিলার করা মামলায় বলা হয়, বিয়ের পর পর্যায়ক্রমে কয়েকবার এ ধরনের মারধরের ঘটনা ঘটেছে। সর্বশেষ ওই বছরের ৩ অক্টোবর তাকে মারধর করা হয়। এর আগে তার স্বামী সানজারি পাঁচ লাখ টাকা যৌতুক নিয়েছেন।

মামলায় আরও বলা হয়, যৌতুক নেয়ার পর সানজারি আরও ১০ লাখ টাকা দাবি করেন। টাকা না পেয়ে তার স্বামী তাকে মারধরও করেন। একটি বেসরকারি এয়ারলাইন্সের পাইলট পারভেজ সানজারির সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরে মিলার প্রেমের সম্পর্কের পর ২০১৭ সালের ১২ মে তারা বিয়ে করেন।

বিয়ের মাত্র ১৩ দিন পরই তাদের মধ্যে দাম্পত্য কলহ শুরু হয়। সেই জেরে বিচ্ছেদও হয়।

বিচ্ছেদের পরও মিলা তার স্বামীর নামে বিভিন্ন সময় অভিযোগ আনেন। মিলার স্বামীও পাল্টা মামলা করেছেন মিলার নামে। কয়দিন আগে সানজারির পরিবার দাবি করে, মিলা সানজারির ওপর এসিড নিক্ষেপ করেছেন। এসিড হামলার প্রতিবাদে মিলার শাস্তি দাবি করে একটি সংগঠনের ব্যানারে মানববন্ধনও করেছে পারভেজ সানজারির পরিবার।