নওয়াপাড়া পৌর ছাত্রলীগ সভাপতির ওপর হামলা : বিক্ষোভ, সড়ক অবরোধ

অভয়নগর (যশোর)প্রতিনিধি :
নওয়াপাড়া পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি কামরুজ্জামান মিলনকে (২৮) কুপিয়ে জখম করেছে এলাকার চিহ্নিত সন্ত্রাসী মোঃ বিল্লাল, শাহ আলম, মুরাদরা। আহতকে প্রথমে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পরে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। সন্ত্রাসীদের আটকের দাবিতে উপজেলা ও পৌর ছাত্রলীগে নেতৃবৃন্দ যশোর খুলনা মহাসড়ক আবরোধ করে বিক্ষোভ করে। ঘটনাটি ঘটেছে গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে নওয়াপাড়া ধোপাদী মোড় নামক স্থানে। প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানাগেছে, মঙ্গলবার বিকেলে নওয়াপাড়া পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি কামরুজ্জামান মিলন মোটরসাইকেলযোগে ভাঙ্গাগেটে যাওয়ার সময় শ্মশান ঘাট ধোপাদী মোড় নামক স্থানে পৌঁছালে সন্ত্রাসীরা মোটরসাইকেলের গতি রোধ করে । এ সময় সন্ত্রাসীরা তাকে লাঠি দিয়ে পিটিয়ে আহত করে এবং ভ্যানে তুলে নওয়াপাড়া মডেল কলেজ রোড দিয়ে নিমতলা নামক স্থানে নিয়ে চাপাতি দিয়ে কুপিয়ে মারাত্মক জখম করে। সন্ত্রাসীরা তাকে মৃত ভেবে ভ্যানে তুলে দেয়। ভ্যানচালক এলাকাবাসীর সহায়তায় তাকে প্রথমে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। পরে তার অবস্থার অবনতি হলে খুলনা মেডিকেল কলেজে ভর্তি করা হয়। এ খবর ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের মাঝে ছড়িয়ে পড়লে তারা হামলাকারীদের আটকের দাবিতে নওয়াপাড়া নুরবাগে যশোর-খুলনা মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করতে থাকে। এ সময় মহাসড়কে শ’শ’ যানবাহন আটকা পড়ে। দুর্ভোগে পড়ে যাত্রী সাধারণ। সন্ধ্যায় অভয়নগর থানার ওসি মোয়াজ্জেম হোসেন সন্ত্রাসীদের ২৪ ঘণ্টার মধ্যে আটকের আশ্বাস দিলে অবরোধ তুলে নেয়। পৌরছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাব্বির আহম্মেদ শান্ত বলেন, নওয়াপাড়া পৌরছাত্রলীগের সভাপতি কামরুজ্জামান মিলনকে হত্যার উদ্দেশ্যে পরিকল্পিতভাবে কুপিয়ে পিটিয়ে জখম করেছে এলাকার চিহ্নিত সন্ত্রাসীরা । তাদেরকে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে আটক করতে না পারলে কঠোর আন্দোলন গড়ে তোলা হবে। অভয়নগর থানার ওসি মোয়াজ্জেম হোসেন বলেন, মিলনকে কেন সন্ত্রসীরা কুপিয়েছে তা এখনো পর্যন্ত জানা যায়নি। তবে সন্ত্রাসীদের আটকে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।