নওয়াপাড়ায় ছাত্রলীগের মিছিলে বোমা-গুলি বর্ষণ

::অভয়নগর (যশোর) প্রতিনিধি::
নওয়াপাড়া পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি কামরুজ্জামান মিলন (২৮) কে কুপিয়ে জখম করার প্রতিবাদ সমাবেশ ও বিক্ষোভ মিছিলে বোমা বিষ্ফোরণ ও গুলিবর্ষণের ঘটনা ঘটে ঘটেছে। বুধবার বিকেলের এ ঘটনায় কেউ হতাহত না হলেও নওয়াপাড়া বাজারের ব্যবসায়ী ও পথচারীদের মধ্যে আতংক ছড়িয়ে পড়ে। মুহুর্তের মধ্যে বাজারের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ হয়ে যায়।

এদিকে মিছিল পূর্ব সমাবেশ থেকে হামলাকারী সন্ত্রাসীদের আটকে ২৪ ঘন্টা সময় বেধে দিয়েছে নেতৃবৃন্দ। হামলাকারীদের আটক করা না হলে যশোরের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান অচলের হুশিয়ারী দিয়েছেন জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি রওশন ইকবাল শাহী।

অভয়নগর উপজেলা ও নওয়াপাড়া পৌর ছাত্রলীগের প্রতিবাদ সমাবেশ উপজেলা আওয়ামী লীগের কার্যালয় চত্বরে অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত প্রতিবাদ সভায় সভাপতিত্ব করেন অভনগর উপজেলা ছাত্রলীগের আহবায়ক শাহ্ খালিদ মামুন।

প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, যশোর জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি রওশন ইকবাল শাহী, যশোর এম এম বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক কাজী তৌহিদুর রহমান, বাঘারপাড়া উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি বায়েজিদ হোসেন, যশোর জেলা ছাত্রলীগ নেতা মোমেল হোসেন, রিয়াজুল ইসলাম রজিন, সালাউদ্দিন পিয়াস, আশিকুর রহমান হৃদয়, মনিরামপুর কলেজ শাখা ছাত্রলীগের আহবায়ক দ্বীপ হোসেন, অভয়নগর উপজেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম আহবায়ক রওশন কবীর টুটুল, সরদার জমিস উদ্দিন, কাজী আহাদুর রহমান, উপজেলা ছাত্রলীগ নেতা তসলিম হোসেন, সুজোন পাটোয়ারী, আবু বক্কার বাবু, পৌর ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মোহাম্মদ আলী প্রমুখ।

অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন পৌর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাব্বির আহমেদ শান্ত।

প্রতিবাদ সমাবেশ যশোর জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি রওশন ইকবাল শাহী বলেন, নওয়াপাড়া পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি কামরুজ্জামান মিলনের উপর হামলাকারী চিহ্নিত সন্ত্রাসী ও মাদক ব্যবসায়ী বেল্লাল আহম্মেদ বাবু, শাহ আলম, রিপন গাজী, মুরাদ হোসেন, মানু ও হৃদয়সহ এদের হোতাকে আগামী ২৪ ঘন্টার মধ্যে আটক করতে না পারলে যশোর জেলার সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অনিদৃষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা করে কঠোর আন্দোলন গড়ে তোলা হবে।

সমাবেশ শেষে একটি বিশাল বিক্ষোভ মিছিল নওয়াপাড়া রেল স্টেশন বাজার প্রদক্ষিণ শেষে ফেরার পথে ইউসিবিএল ব্যাংকের সামনে পৌঁছালে মিছিলের পরপর তিনটি বোমার বিষ্ফোরণ ও তিন রাউন্ড গুলিবর্ষণ করা হয়। এতে হতাহতের কোন ঘটনা না ঘটলেও আতংকে বাজারের ব্যবসায়ীরা তাদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেয়। লোকজন দিকবিদিক হয়ে ছোটাছুটি শুরু করে। পরে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এ ঘটনায় নওয়াপাড়ায় উত্তেজনা বিরাজ করছে। শহরে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে অভয়নগর থানার ওসি মোয়াজ্জেম হোসেন বলেন, এ ঘটনায় কাউকে আটক করা সম্ভব হয়নি। এখন পর্যন্ত মিলনের পক্ষ থেকে কোন মামলা বা অভিযোগ দায়ের করা হয়নি।
উল্লেখ্য, গত মঙ্গলবার বিকালে নওয়াপাড়া পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি কামরুজ্জামান মিলনকে কুপিয়ে ও পিটিয়ে জখম করে সন্ত্রাসীরা।