হতাশ তামিম বের হয়ে গেলেন সবার আগে

স্পন্দন স্পোর্টস ডেস্ক : বিমর্ষ এক বিশ্বকাপ। স্বাভাবিকভাবেই বিষণ্ন ক্রিকেটারদের মন। সঙ্গে লম্বা ভ্রমণক্লান্তি তো ছিলই। ক্রিকেটারদের তাই একটু তাড়াহুড়ো। আয়ারল্যান্ডে ত্রিদেশীয় সিরিজ আর বিশ্বকাপ মিলিয়ে প্রায় দুইমাস দেশের বাইরে থাকার পর আজ (রোববার) দেশে ফিরেছে বাংলাদেশ দল।

যদিও পুরো দল ফিরে আসেনি। স্ত্রী-কন্যাসহ ইংল্যান্ড থেকে ইউরোপে ঘুরতে গেছেন সাকিব আল হাসান। লিটন দাস-সাব্বির রহমানসহ বেশ কয়েকজন রয়ে গেছেন লন্ডনে। অধিনায়ক মাশরাফিসহ বাকিরা দেশে ফিরেছেন আজ বাংলাদেশ সময় বিকেল ৫টা ২০ মিনিটে।

দেশে ফিরছেন টাইগাররা। এ কারণে বিমান বন্দরের বাইরে ভক্ত-সমর্থকদের ভিড়। মাশরাফিরা বেরিয়ে আসবে, তাদের একনজর দেখবে- এটাই প্রত্যাশা। অন্যদিকে মিডিয়ার প্রত্যাশা ক্রিকেটারদের কথা শোনা এবং এ নিয়ে নিউজ করা।

সবার প্রতীক্ষার প্রহর শেষ করে সবার আগে একা বের হয়ে আসেন ওপেনার তামিম ইকবাল। পুরো বিশ্বকাপে ছিলেন ব্যর্থ। তাকে নিয়ে স্বাভাবিকভাবেই সমালোচনার নহর বয়ে যাচ্ছে। তামিম নিজেও খুব হতাশ। যে কারণে কারও মুখোমুখি হতে চাইলেন না। সবার আগে বেরিয়ে এসে তাই সোজা উঠে গেলেন অপেক্ষমান গাড়িতে এবং কারো সঙ্গে কোনো কথা না বলেই বেরিয়ে যান তিনি। এ সময় তার চোখেমুখে দেখা যাচ্ছিলো হতাশার ছাপ।

তামিম বেরিয়ে যাওয়ার বেশ কিছুক্ষণ পর বের হয়ে আসেন অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা। গণমাধ্যমের সাথে কথা বলার পর সচিবালয়ের সংসদ সদস্য সিল সম্বলিত গাড়িতে করে বিমানবন্দর চত্বর ত্যাগ করেন তিনি। তামিম-মাশরাফি বেরিয়ে যাওয়ার পর একে একে সিআইপি এন্ট্রেন্স দিয়ে বের হয়ে আসেন মিঠুন, রুবেল, সাইফ, মোসাদ্দেক, সৌম্য, মোস্তাফিজ, সৈকত ও ম্যানেজার খালেদ মাহমুদ সুজন।

তখনো বের হননি দলের দুই সিনিয়র ক্রিকেটার মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ এবং মুশফিকুর রহীম ও পেসার আবু জায়েদ রাহী। তাদের আগেই বের হয়ে আসেন দলের মিডিয়া ম্যানেজার রাবিদ ইমাম। পরে অবশ্য বের হন ওই তিনজনও।