রিকসায় যাত্রীবেশী পকেটমার!

প্রতীকী ছবি

::নিজস্ব প্রতিবেদক::

রিকসায় উঠিয়ে কৌশল অবলম্বন করে যশোর শহর থেকে টুটুল শেখ নামে এক মাইক্রোবাস চালকের কাছ থেকে সাড়ে ৬ হাজার টাকা হাতিয়ে নেয়া হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় কাওছার (৪৫) নামে এক ব্যক্তিকে আটক করেছে পুলিশ। তিনি শহরতলীর পুলেরহাট এলাকায় থাকেন। আর টুটুল শেখ চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা উপজেলার গোপক গ্রামের আমির শেখের ছেলে।

টুটুল জানান, তিনি মিজান নামক একটি সয়াবিন তেল কোম্পানির মাইক্রোবাস চালান। গত সোমবার তিনি ঢাকা থেকে যশোর ডিপো অফিসে আসেন। দুপুর দুইটার দিকে উপশহর খাজুরা বাসস্ট্যন্ডে গিয়ে কাওছারের রিকসায় উঠতে চান হাসপাতাল মোড়ে যাওয়ার জন্য। কিন্তু কাওছার তাকে না নিয়ে পাশের রিকসা দেখিয়ে দেন। ওই রিকসায় আরো এক যাত্রী বসে ছিলো। রিকসাটি দড়াটানা অভিমুখে কিছুদূর এগিয়ে আসলে পাশের যাত্রী নেমে যায়। তিনি পেছনে তাকিয়ে দেখেন ওই রিকসা চালক কাওছার পেছন পেছন এসে তার রিকসার কাছে দাঁড়ায়। পরে তাকে দড়াটানায় নিয়ে আসে কাওছার।

রিকসা থেকে নেমে ভাড়া দেয়ার সময় দেখেন তার পরিহিত লুঙ্গির গাটের (লুঙ্গির বাধন) মধ্যে রাখা ৬ হাজার ৫৭০ টাকা নেই। টাকা রাখার স্থানটি ব্লেড দিয়ে কাটা। তার ধারণা পাশের যাত্রী ওই টাকা কৌশলে কেটে নিয়ে গেছে। তিনি সে সময় রিকসা চালক কাওছারকে জিজ্ঞাসা করলে জানায় তিনি কোনো রিকসা চালককে চেনেন না। পরে জেরার মুখে রিকসা রেখে কাওছার একটি ক্লিনিকের দোতলায় উঠে যায় পালিয়ে যাওয়ার জন্য। তিনি পিছু নিয়ে ক্লিনিকের দোতলায় গিয়ে কাওছারকে সহযোগী হিসেবে ধরে হট্টোগোল করতে থাকেন। পরে সংবাদ পেয়ে পুলিশ সেখানে গিয়ে কাওছারকে থানায় নিয়ে যায়।

কোতয়ালি থানার এএসআই আলতাফ মাহমুদ জানিয়েছেন, সংবাদ পেয়ে তিনি দড়াটানা হাসপাতাল মোড় থেকে কাওছারকে আটক করে থানায় নিয়ে যান। তিনি জানিয়েছেন, দুই রিকসা চালক ও রিকসায় বসা অজ্ঞাত যাত্রীর সাথে যোগসাজস থাকতে পারে। শহরের নতুন মানুষ এলে তারা চিহ্নিত করে এবং কৌশলে টাকা পয়সা হাতিয়ে নেয়। তবে কাওছার এ ঘটনার সাথে জড়িত কি-না তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

এ বিষয়ে রিকসা চালক কাওছার জানিয়েছেন, তার বাড়ি খুলনা শহরের টুটপাড়ায়। সপ্তাহ খানেক হলো তিনি যশোরে এসে রিকসা চালাচ্ছেন। তার রিকসায় ওঠা যাত্রী টুটুল জানান, তার কাছ থেকে টাকা চুরি হয়ে গেছে। আগের রিকসা চালক বা ওই রিকসার যাত্রী সেটা করতে পারে। তিনি তাদের চেনেন না বলে জানিয়েছেন।

পুলিশের একটি সূত্র জানিয়েছে, যশোর শহরে রিকসা চালকদের প্রতারণা নতুন কিছু নয়। কিছু দিন আগে দুই নারী রুগির কাছে একটি সোনার বিস্কুট দেখিয়ে তাদের কাছ থেকে সোনার গহনা হাতিয়ে নেয়া হয়েছে। পরে দেখা গেছে সোনার বিস্কুট না পিতলের। এ রকম নানা ধরনের প্রতারণা সংবাদ মাঝেমধ্যে পাওয়া যায়। এছাড়া সম্প্রতি দেশের বিভিন্ন পত্র পত্রিকায় প্রকাশিত হচ্ছে-দিনে রিকসা চালক বা ফল বিক্রেতা রাতে ডাকাত। ডাকাতরা বেশির ভাগই শ্রমিক শ্রেণির মানুষ। দিনে নানা পেশার সাথে যুক্ত।