কাঁঠাল খাওয়া প্রতিযোগিতা: ২ মিনিটে ৬৭ কোয়া সাবাড়


চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলা প্রশাসন, পৌরসভা ও তারাদেবী ফাউন্ডেশনের সহযোগিতায় জাতীয় ফল কাঁঠাল খাওয়া ও রেসিপি প্রতিযোগিতা করেছে উদীচী চুয়াডাঙ্গা। মঙ্গলবার সকালে চুয়াডাঙ্গা সরকারি কলেজ মাঠে এ প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন চুয়াডাঙ্গা সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর মো. কামরুজ্জামান। তিনি বলেন-কাঁঠাল শুধু সুস্বাদু খাদ্য নয় আমাদের সভ্যতা-সংস্কৃতির অংশ। যারা ব্যবসায়ী আছেন তারা পশ্চিমা দেশগুলোর মতো কাঁঠাল নিয়ে নানা রকম ব্যবসা করতে পারেন।

উদীচী শিল্পোগোষ্ঠীর জেলা সভাপতি বেলাল হোসেনের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি ছিলেন চুয়াডাঙ্গার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) খোন্দকার ফরহাদ আহমদ। অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) কানাই লাল সরকার, ডা. মসিউর রহমান, অধ্যাপক সফিকুল ইসলাম, উদীচী সাধারণ সম্পাদক হাবিবি জহির রায়হান, ড. আব্দুল আজিজ, অধ্যাপক দেলোওয়ার হোসেন, অধ্যাপক মহাসিন কবির।

কাঁঠাল ভক্ষণ প্রতিযোগিতায় মাত্র ২ মিনিটে ৬৭টি কোয়া খেয়ে ১ম স্থান অধিকার করেন চুয়াডাঙ্গা সরকারি কলেজের ইংরেজি বিভাগের ছাত্র পারভেজ।

একই সময়ে ৬১টি কোয়া খেয়ে দ্বিতীয় স্থান অধিকার করে জয়রামপুরের খোদাবক্স আলি, ৫৯টি কোয়া খেয়ে যৌথভাবে ৩য় স্থান অধিকার করে আলমগীর ও সোহেল।

প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় স্থান অধিকারীসহ সংখ্যার দিক থেকে প্রথম দশজনকে তারাদেবী ফাউন্ডেশনের সৌজন্যে প্রত্যেকের জন্য ছিলো একটি করে লুঙ্গি, গেঞ্জি ও গামছা।