ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে প্রতিবন্ধী ভাতা আত্মসাতের অভিযোগ

::আলমডাঙ্গা অফিস::

এক প্রতিবন্ধীর ভাতা টানা দুই বছর আত্মসাত করছেন আলমডাঙ্গা উপজেলার জামজামি ইউনিয়নের সদস্য নাসির উদ্দিন। তিন বছর পর সমাজসেবা অফিস থেকে ভাতা প্রাপ্তির তথ্য প্রকাশিত হলে ওই প্রতিবন্ধীকে ‘ম্যানেজ’ করার চেষ্টাও করেন ওই সদস্য। তবে সব কিছু প্রকাশিত হওয়ার পর নিজেকে আড়াল করে রাখার চেষ্টা করছেন তিনি। এ বিষয়ে কারো সাছে কোনো বক্তব্য দিচ্ছেন না।

জামজামি এলাকার ইউপি সদস্য মৃত ভিকু শা’র ছেলে নাসিরউদ্দিন বেশ কিছুুদিন আগে একই ইউনিয়রে হোগলার দাড়ী গ্রামের মৃত আজগার আলীর ছেলে প্রতিবন্ধী আজিমুদ্দিন (৩০) এর কাছ থেকে এক হাজার টাকা নেই প্রতিবন্ধী ভাতার কার্ড করে দেবে বলে। প্রায় ৩ বছর পার হয়ে গেলেও হতদরিদ্র প্রতিবন্ধী আজিমুদ্দিনের ভাগ্যে কার্ড বা ভাতা কোনটায় জোটেনি। দিনের পর দিন ইউপি সদস্য নাসিরের ধরনা দিয়ে হয়রান ওই প্রতিবন্ধী জামজামি বাজারে সকলের সামনে বিষয়টি জানায়।

এরপর এলাকাবাসী আলমডাঙ্গা সমাজসেবা অফিসের মাধ্যমে জানতে পারে প্রতিবন্ধী আজিমুদ্দিনের প্রতিবন্ধী ভাতার কার্ড ২০১৭-১৮ অর্থ বছরেই হয়েছে এবং নির্ধারিত সময়ে ২ বছর যাবৎ জামজামি কৃষি ব্যাংক শাখায় তার নামে টাকা জমা হয়। ব্যাংক কর্মকর্তার সহযোগিতায় ইউপি সদস্য নাসির সব টাকা তুলে নিয়েছে বলে নিশ্চিত হওয়া গেছে। এ দুই বছরে জমা হয়েছিল প্রায় ১৫ হাজার টাকা।

এরপর এলাকাবাসী ইউপি সদস্যের উপর চাপ দিলে, অল্পকিছু টাকা গোপনে প্রতিবন্ধীর হাতে দিয়ে বিষয়টি ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা করে। প্রতিবন্ধী আজিমুদ্দিন তার প্রাপ্য টাকা পাওয়ার জন্য দ্বারে দ্বারে ঘুরছে।

বিষয়টি জানতে ইউপি সদস্য নাসিরকে বারবার ফোন দিলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি।