ঝিকরগাছার ইজিবাইকচালক ফারুক হত্যা মামলার চার্জশিট, অভিযুক্ত ১৯

নিহত ইজিবাইকচালক ফারুক হোসেন

::নিজস্ব প্রতিবেদক::

যশোর ঝিকরগাছার মনোহরপুর (তেঘরি) গ্রামের ইজিবাইক চালক ফারুক হোসেন হত্যা মামলায় ১৯ জনকে অভিযুক্ত করে চার্জশিট দিয়েছে পুলিশ। মামলার তদন্ত শেষে আদালতে এ চার্জশিট জমা দেন তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই শিকদার রকিব উদ্দিন।

অভিযুক্ত আসামিরা হলো, মনোহরপুর গ্রামের মৃত জামাল বিশ্বাসের ছেলে মশিয়ার রহমান, মৃত এমদাদুল হকের ছেলে ওলিয়ার রহমান, আব্দুল আলী, মনছের আলীর ছেলে আনসার আলী, ওলিয়ার রহমানের ছেলে মনোয়ার হোসেন, মৃত আহাদ আলীর ছেলে শুকুর আলী, মৃত জামাল বিশ্বাসের ছেলে মতিয়ার রহমান, আবু কালাম, মিকাইল, মন্টু মিয়ার ছেলে রানা, মৃত হারেজ বিশ্বাসের ছেলে কেছমত আলী, ইসমাইল বিশ্বাসের ছেলে মিন্টু, মৃত আহাদ আলীর ছেলে নিচার আলী কটা, খোকন, মৃত আনার মিস্ত্রীর ছেলে আব্দুল আলিম, মৃত কুদরত আলীর ছেলে মোন্তাজ আলী, মশিয়ার রহমানের স্ত্রী সাধনা বেগম, ছেলে সোহাগ ও মিকাইলের ছেলে উজ্জল।

মামলার অভিযোগে জানা যায়, মনোহরপুর গ্রামের মহিউদ্দিনদের সঙ্গে আসামিদের দীর্ঘদিনের শত্রুতা চলে আসছিলো। পূর্ব শত্রুতার জের ধরে গত ২৩ জানুয়ারি ২০১৯ আসামিরা মহিউদ্দিনের বাড়িতে হামলা করে বাড়িঘর ভাঙচুর ও বাড়ির লোকজনকে বেদম মারপিট করে। এ সময় আসামিদের ধারালো অস্ত্রের কোপে ফারুক হোসেনের গুরুতর আহত হয়। পরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ফারুক হোসেন ২৭ ফেব্রুয়ারি মারা যান। এ ব্যাপারে নিহতের ভাই মহিউদ্দিন বাদী হয়ে ঝিকরগাছা থানায় একটি হত্যা মামলা করেন।

মামলার তদন্ত সূত্রে জানা গেছে, মনোহরপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নির্মাণ শ্রমিকদের রান্না করে দিতো নবিছোন বিবি। গত ২৩ জানুয়ারি মিস্ত্রীরা তাকে ৮০ টাকা বকশিস দেয়। এ টাকা তার ব্যাগ থেকে হারিয়ে যায়। ওইদিন বিকেলে টাকা চুরির কথা দোকানদার রবিউল ইসলামের স্ত্রী জোসনা বেগমকে বলে। বিষয়টি আসামি সাধনা বেগম শুনে দোকানে যারা আসে তারা এ টাকা চুরি করেছে বলে মন্তব্য করে। এ নিয়ে তাদের মধ্যে কথাকাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে সাধনা বেগমের পরিবারের লোকজন মহিউদ্দিনের বাড়িতে হামলা করে বাড়ি-ঘর ভাঙচুর ও ফারুক, মহিউদ্দিন, জোসনা বেগমসহ অন্যান্যকে বেদম মারপিট করে। পরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ফারুক মারা যান।

এ মামলার দীর্ঘ তদন্তকালে আটক আসামিদের দেয়া তথ্য ও সাক্ষীদের বক্তব্যে হত্যার সাথে জড়িত থাকায় ওই ১৯ জনকে অভিযুক্ত করে আদালতে এ চার্জশিট জমা দিয়েছেন তদন্তকারী কর্মকর্তা। চার্জশিটে অভিযুক্ত ১২ জনকে পলাতক দেখানো হয়েছে।