এরশাদের চেয়ার ভাই জিএম কাদেরকেই দিল জাতীয় পার্টি

::স্পন্দন ডেস্ক::
হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের মৃত্যুতে তার ভাই জিএম কাদেরকে আনুষ্ঠানিকভাবে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ঘোষণা করা হয়েছে। জাতীয় সংসদে প্রধান বিরোধী দলের ভূমিকায় থাকা এ দলের মহাসচিব মসিউর রহমান রাঙ্গাঁ বৃহস্পতিবার বনানীতে এক সংবাদ সম্মেলনে এ ঘোষণা দেন।

তিনি বলেন, জাতীয় পার্টির গঠনতন্ত্রের ০/১ ক ধারা অনুযায়ী হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ মৃত্যুর আগে বলে গেছেন, তার অবর্তমানে জিএম কাদের দলের চেয়ারম্যান হবেন। আজ থেকে আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি, জি এম কাদেরই আজ থেকে দলের চেয়ারম্যান হবেন।

নতুন চেয়ারম্যান জি এম কাদের এ সময় মহাসচিবের পাশেই ছিলেন। তবে এরশাদের স্ত্রী ও দলের সিনিয়র কো চেয়ারম্যান রওশন এরশাদকে সংবাদ সম্মেলনে দেখা যায়নি।

সাবেক সামরিক শাসক এরশাদ গত ১৪ জুলাই ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে মারা যান। তার বয়স হয়েছিল ৯০ বছর।

মৃত্যুর আগে এরশাদ তার ভাই জিএম কাদেরকে দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান করে গিয়েছিলেন, যা নিয়ে দলে অনেক নাটকীয়তাও হয়েছিল।

গত জানুয়ারিতে চিকিৎসার জন্য বিদেশে যাওয়ার আগে ছোট ভাই কাদেরকে দলের ভবিষ্যত চেয়ারম্যান হিসেবে ঘোষণা করেছিলেন সংসদের বিরোধী দলীয় নেতা এরশাদ।

কিন্তু দেশে ফেরার পর মার্চ মাসে জিএম কাদেরকে তিনি জাতীয় পার্টির সাংগঠনিক দায়িত্ব থেকে সরিয়ে দেন ‘ব্যর্থতার’ অভিযোগ এনে। সংসদে বিরোধী দলের উপনেতার দায়িত্ব থেকেও তিনি কাদেরকে সরিয়ে দেন, সেই দায়িত্ব পান এরশাদের স্ত্রী রওশন, যিনি দলের সিনিয়র কো চেয়ারম্যানের দায়িত্বে আছেন।

এরপর দুই সপ্তাহ না গড়াতেই রংপুর বিভাগের নেতাকর্মীদের তোপের মুখে আবার ভাইকে নেতৃত্বে ফেরান সাবেক রাষ্ট্রপতি এরশাদ। পরে নিজের বাসায় সাংবাদিকদের ডেকে নিয়ে জি এম কাদেরকে দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের পদে আসীন করেন।

জাতীয় পার্টির জ্যেষ্ঠ নেতাদের অনেকেই তখন এ বিষয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করে বক্তব্য দিয়েছিলেন। দলের নীতিনর্ধারণী পর্যায়ের সিদ্ধান্তগুলো চেয়ারম্যান একা নেন বলেও অসন্তোষ প্রকাশ করেছিলেন কেউ কেউ।

দলের নেতৃত্ব নিয়ে এরশাদপত্নী রওশন এরশাদের সঙ্গেও শীতল সম্পর্ক চলছে জি এম কাদেরের। তাকে ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান করার পর থেকেই সিনিয়র কো চেয়ারম্যান রওশন দলের কর্মসূচিতে আসছেন না।

এ অবস্থায় এরশাদের মৃত্যুর পর জাতীয় পার্টির হাল কে ধরবেন, কীভাবে এ দল পরিচালিত হবে- সেসব প্রশ্ন রাজনৈতিক অঙ্গনে ঘুরছিল।

‘ভারপ্রাপ্ত’ থেকে পুরো দায়িত্ব নিয়ে ভাইয়ের চেয়ারে বসে জি এম কাদেরকেই এখন জাতীয় পার্টিকে ঐক্যবদ্ধ রাখার চ্যালেঞ্জ সামলাতে হবে।