যশোর জেলা ক্রীড়া সংস্থার নির্বাচনে অনিয়মের অভিযোগ

::ক্রীড়া প্রতিবেদক::
যশোর জেলা ক্রীড়া সংস্থার নির্বাচনে নির্বাচন কমিশনের নানা অনিয়ম তুলে ধরে প্রেসক্লাব যশোরে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময় করেছেন খেলাধুলার উন্নয়ন ও অগ্রগতি পরিষদের নেতৃবৃন্দ। শুক্রবার মতবিনিময়সভায় তারা অনিয়মগুলো সংশোধনের দাবি জানান।

মতবিনিময়সভায় লিখিত বক্তব্যে পাঠ করেন, উক্ত পরিষদের সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী আসাদুজ্জামান মিঠু। তিনি তার বক্তব্যে বলেন, ইতিমধ্যে যশোর জেলা ক্রীড়া সংস্থার নির্বাচনী তফসিল ঘোষণা করা হয়েছে। নির্বাচন উপলক্ষে ভোটার তালিকায় কতিপয় ক্লাবের বিরুদ্ধে অভিযোগের প্রেক্ষিতে জেলা ক্রীড়া পরিশদ গত ৪ জুলাই তদন্ত কমিটি গঠন করে। সেই তদন্ত কমিটির কার্যক্রম চলমান রয়েছে। নির্বাচন উপলক্ষে জেলা প্রশাসকের সাধারণ শাখার পত্রের মাধ্যমে সাধারণ পরিষদ গঠন করা হয়েছে। যার ফলে ভোটার তালিকা হালনাগাদ করা হয়নি। উক্ত কারণে জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ প্রণীত জেলা ক্রীড়া সংস্থার গঠনতন্ত্রের অনুচ্ছেদ ২৬.২ ধারা লঙ্ঘন করা হয়েছে। ভোটার তালিকা হালনাগাদ না হওয়ার কারণে মৃত বিমল রায় চৌধুরী, মৃত আবু সাঈদের নাম রয়েছে। কারণ ভোটার তালিকা প্রকাশের পূর্বে তারা মারা গেছেন। ক্রীড়া সংস্থার জীবন সদস্য শরিফুল ইসলাম চৌধুরী সরু। অথচ নির্বাচন উপলক্ষে প্রণীত ভোটার তালিকায় তার নাম অন্তর্ভুক্ত করা হয়নি। ইতিমধ্যে বিষয়টি গঠনতন্ত্রের অনুচ্ছেদ ২৬.২ ধারা মোতাবেক সংশ্লিষ্ট ক্রীড়া সংস্থার সভাপতির নিকট আপিল করা হয়েছে।

যার প্রেক্ষিতে গত ৯ জুলাই বিভাগীয় ক্রীড়া সংস্থার পক্ষে সহকারী নির্বাচন কমিশনার খাতুনে জান্নাত কর্তৃকবিধি মোতাবেক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের নির্দেশ দেয়া হয়। যা নিষ্পত্তি হয়নি। জেলা ক্রীড়া সংস্থার নির্বাচন ২০১৯ এর গঠনতন্ত্রের অনুচ্ছেদ ১১.১২ অনুযায়ী সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক কর্তৃক জেলার ২জন প্রাক্তন ক্রীড়াবিদ, ১জন ক্রীড়া সংগঠক, ২জন ক্রীড়ানুরাগী মনোনীত হবে। কিন্তু চুড়ান্ত ভোটার তালিকায় ২২৬,২২৭,২২৮,২২৯,২৩০, ভোটারগণ জেলা প্রশাসক কর্তৃক মনোনীত হয়েছেন। যা গঠনতন্ত্রের ১১,১২ ধারা লঙ্ঘন। গঠনতন্ত্রের অনুচ্ছেদ-৭ উপেক্ষা করে সম্পন্ন করে নিজেদের স্বার্থ চরিতার্থ করার জন্য বিগত বিলুপ্ত কমিটি আইন বহির্ভূত ভাবে অসংখ্য ক্লাব ও সংস্থার অ্যাফিলিয়েশন প্রদান করে।

অন্যদিকে ২০১৬ সালে ১৯ ফেব্র“য়ারি তৎকালিন ক্রীড়া সংস্থার সভাপতি ও জেলা প্রশাসকের সুপারিশকৃত জাতির জনক শেখ মুজিবুর রহমানের জৈষ্ঠ পূত্র শেখ কামালের প্রতিষ্ঠিত আবহানী ক্রীড়া চক্র, ভাষা শহীদ মুক্তিযোদ্ধা স্মৃতি সংসদ শহীদ মশিউর রহমান স্মৃতি সংসদ, অধ্যক্ষ আব্দুল হাই স্মৃতি সংসদ, রওশন আলী স্মৃতি সংসদও শেখ শামস্ উল হুদা স্মৃতি সংসদ, নাজমুল হাসান বাবুল স্মৃতি সংসদসহ অসংখ্য প্রতিষ্ঠিত ক্লাব সমূহকে অনুমোদন না দিয়ে মুক্তিযোদ্ধা বিরোধিতাকারী ব্যক্তিবর্গের ক্লাবের নাম অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।

মতবিনিময়সভায় উপস্থিত ছিলেন সহসভাপতি প্রার্থী শফিউর রহমান কালু, অতিরিক্ত সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী আব্দুল মান্নান, যুগ্ম-সম্পাদক প্রার্থী আলমগীর সিদ্দিকী, জীবন সদস্য শরিফুল ইসলাম চৌধুরী সরু, তৌফিক জান প্রমুখ।

স্পন্দন/আরএইচ