চৌগাছায় আনসার-ভিডিপি ক্লাবের টিন-ইট-জানালা-দরজা লুট

::চৌগাছা প্রতিনিধি::
যশোরের চৌগাছার হাজারাখানা আনসার-ভিডিপি ক্লাবের সরকারি অর্থায়নে নির্মিত আধাপাকা ঘরটি ভেঙে ইট-টিন-জানালা-দরজা লুট করে নিয়েছে দুর্বৃত্তরা। শুক্রবার দিবাগত রাতে গ্রামেরই কিছু দুর্বৃত্ত ক্লাবঘরটি ভেঙে ইট-জানালা-দরজা-টিন লুট করে নেয় বলে জানিয়েছেন উপজেলা আনসার-ভিডিপি কর্মকর্তা ইমরান আহমেদ।

ইমরান আহমেদ জানান, শুক্রবার মোবাইল ফোনের মাধ্যমে মৌখিক অভিযোগ পেয়ে তিনি ঘটনাস্থলে গিয়ে ঘরটি অক্ষত অবস্থায় দেখতে পান। কিন্তু শনিবার সকালেই স্থানীয়রা তাকে জানান ঘরটি রাতেই ভেঙে ফেলা হয়েছে এবং ঘরের ইট-জানালা-দরজা নিয়ে গেছে দুর্বৃত্তরা।

তিনি আরো জানান, তিনি অফিসিয়ালি থানায় মামলা করবেন। ইমরান আহমেদ বলেন, এই ক্লাব ঘরটি সরকারি সম্পত্তি। সরকারের একটি ইটও কেউ অবৈধভাবে দখল করে আইনের হাত থেকে রেহাই পাবে না।

শনিবার দুপুরে সরেজমিনে হাজরাখানা আনছার-ভিডিপি ক্লাবে গিয়ে দেখা যায়, ক্লাবঘরটির সামনের এবং একপাশের দেয়াল রেখে অন্য দুই দেয়াল ভেঙে ফেলা হয়েছে এবং সেখান থেকে কয়েকটি জানালা এবং কিছু ইটও নিয়ে গেছে। অন্য দুটি জানালা ভাঙা ঘরটির পাশে পড়ে আছে।

স্থানীয়রা জানান, ১৯৯০-৯১ সালের দিকে যশোরের তৎকালীন জেলা প্রশাসক ক্লাবের অর্ধপাকা ঘরটি উদ্বোধন করেন। কয়েক বছর আগে থেকেই গ্রামের কয়েক ব্যক্তি ক্লাবঘরটি দখল নিতে মরিয়া হয়ে ওঠে। রাতের আধারে তারা ক্লাব ঘরের টিনের কিছু অংশ খুলে নিয়ে যায়। এ ঘটনায় তখন গ্রামবাসী গণস্বাক্ষরের মাধ্যমে উপজেলা আনসার-ভিডিপি অফিসে অভিযোগ করলে ওই দুর্বৃত্তরা কিছুটা নিবৃত হয়। কিন্তু গত দু’তিন দিন থেকেই ওই দুর্বৃত্তরা আবারো ক্লাবঘরটির ইট ভেঙে ফেলতে শুরু করে।

এ অবস্থায় মোবাইল ফোনের মাধ্যমে সংবাদ পেয়ে উপজেলা আনসার-ভিডিপি কর্মকর্তা ইমরান আহমেদ শুক্রবার ওই স্থান পরির্দশন করে গ্রামবাসীকে এ বিষয়ে সতর্ক করেন। কিন্তু শুক্রবার রাতেই ওই দুর্বৃত্তরা ক্লাবঘরটির পিছন এবং পাশের দেয়াল দুটি সম্পূর্ণ ভেঙে ফেলে এবং সেখান থেকে বেশ কিছু ইট এবং কয়েকটি জানালাও সরিয়ে ফেলেছে। এছাড়া ক্লাবটি ১৯৯০-৯১ সালে তৎকালীন যশোর জেলা প্রশাসকের উদ্বোধন করার সময়ের শিলালিপিটিও তারা নষ্ঠ করে রেখে গেছে।

স্থানীয়রা বলছেন, ক্লাবঘরের আজ রাতেই হয়তো যেটুকু অস্তিত্ব আছে সেসবও সরিয়ে ফেলবে ওই চক্রটি।

এ বিষয়ে উপজেলা আনসার-ভিডিপি কর্মকর্তা ইমরান আহমেদ জানান, শুক্রবার মোবাইল ফোনের মাধ্যমে মৌখিক অভিযোগ পেয়ে তিনি ঘটনাস্থলে গিয়ে ঘরটি অক্ষত অবস্থায় দেখতে পান। কিন্তু শনিবার সকালেই স্থানীয়রা তাকে জানান ঘরটি রাতেই ভেঙে ফেলে ঘরের ইট-জানালা-দরজা নিয়ে গেছে।