অভয়নগরে ধান সংগ্রহ করলেন চেয়ারম্যান ও ইউএনও

:: অভয়নগর প্রতিনিধি ::
সিন্ডিকেট ও দালাল চক্রের হাত থেকে কৃষকদের বাঁচাতে অভয়নগর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও নির্বাহী অফিসার ব্যতিক্রমী উদ্যোগ গ্রহণ করেছেন। প্রান্তিক ও ক্ষুদ্র কৃষকদের কাছে গিয়ে তারা ধান সংগ্রহ অভিযান শুরু করেছেন। যার ধারাবাহিকতায় ৮টি ইউনিয়নের ধান সংগ্রহ অভিযান শেষ করে মঙ্গলবার দুপুরে নওয়াপাড়া পৌর এলাকার এ অভিযান শুরু করেন।

নওয়াপাড়া সরকারি মহাবিদ্যালয় মাঠে ধান সংগ্রহ অভিযান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহবায়ক শাহ্ ফরিদ জাহাঙ্গীর।

সভাপতিত্ব করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. শাহীনুজ্জামান। এ সময় উপস্থিত ছিলেন নওয়াপাড়া সরকারি মহাবিদ্যালয়ের অধ্যক্ষ রবিউল হাসান, উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা গোলাম ছামদানী, খাদ্য নিয়ন্ত্রক আশরাফুজ্জামান, নওয়াপাড়া সরকারি খাদ্য গুদামের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এম এম ইকবাল হোসেন, সাংবাদিকসহ পৌর এলাকার শতশত কৃষক।

চেয়ারম্যান ও নির্বাহী অফিসার জানান, ২৭২ জন কৃষকের কার্ড যাচাই-বাছাইয়ের মধ্যদিয়ে ২১৯ জন কৃষকের কার্ড তালিকাভুক্ত করা হয়। তালিকাভুক্ত ২১৯ জন কৃষক জনপ্রতি ৭ মণ করে ধান দিতে পারবেন। ২৬ টাকা কেজি এবং ১ হাজার ৪০ টাকা মণ দরে এ ধান ক্রয় করা হবে। ক্রয়কৃত ধান অগ্রণী ব্যাংক নওয়াপাড়া শাখায় ওই কৃষকের নিজেস্ব একাউন্টে জমা দেয়া হবে।

এ ব্যাপারে নওয়াপাড়া সরকারি খাদ্য গুদামের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এমএম ইকবাল হোসেন জানান, ধানের আদ্রতা ১৪ এর উপরে হলে সে ধান বাতিল বলে বিবেচিত হবে। আগামী ২৪ জুলাই সিদ্ধিপাশা, ২৫ জুলাই চলিশিয়া, ২৮ জুলাই পায়রা, ২৯ জুলাই বাঘুটিয়া, ৩১ জুলাই প্রেমবাগ, ১ আগস্ট সুন্দলী ও ৪ আগস্ট শ্রীধরপুর ইউনিয়নের তালিকাভুক্ত কৃষকরা নওয়াপাড়া সরকারি খাদ্য গুদামে চাল দিতে পারবেন।

এছাড়া আগামী ৫ আগস্ট নওয়াপাড়া পৌর এলাকার কৃষকরা চাল দিতে পারবেন বলে তিনি নিশ্চিত করেন।