মাতৃগর্ভে গুলিবিদ্ধ সেই শিশু সুরাইয়ার চিকিৎসার দায়িত্ব নিলেন প্রধানমন্ত্রী

:: মাগুরা প্রতিনিধি ::
মাতৃগর্ভে গুলিবিদ্ধ শিশু সুরাইয়ার ৫ম জন্মদিন উদযাপন করেছে মাগুরা জেলা প্রশাসন। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মৌখিক নির্দেশনায় মঙ্গলবার সন্ধ্যায় শহরতলীর দোয়াপাড় এলাকায় সুরাইয়ার বাড়িতে উপস্থিত হয়ে জেলা প্রশাসক আলী অকবর কেক কেটে তার জন্মদিন উদযাপন করেন এবং উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে ঢাকায় পাঠানোসহ সব ধরনের সহযোগিতার আশ্বাস দেন।

এ সময় স্থানীয় সরকার বিভাগের উপপরিচালক মাহবুবুর রহমান, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক আব্দুস সালাম, সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবু সুফিয়ানসহ জেলা প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্তকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

চার বছর পূর্ণ করে পাঁচ বছরে পা রাখা সুরাইয়া চিকিৎসার অভাবে প্রতিবন্ধী হয়ে যাচ্ছে। এ বিষয়ে বিভিন্ন মিডিয়ায় সংবাদ প্রকাশিত হয়। যা পড়ে জেলা প্রশাসক নিজেই সুরাইরায়কে সরকারিভাবে চিকিৎসার ব্যবস্থা গ্রহণের চিন্তা করেন। এরই মধ্যে প্রকাশিত সংবাদটি প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের নজরে আসে। এ সংবাদের সূত্র ধরে মঙ্গলবার দুপুরে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে ফোনে মৌখিকভাবে সুরাইয়াকে ঢাকায় এনে যথাযথ চিকিৎসা ও পরিবারটির সার্বিক সহযোগিতার দিতে বলা হয় মাগুরা জেলা প্রশাসনকে।

জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে তাৎক্ষণিকভাবে তার বাড়িতে গিয়ে সুরাইয়া ও তার পরিবারের খোঁজখবর নেয়া হয়। পরে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে তার জন্মদিন পালনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। সে মোতাবেক জেলা প্রশাসক আলী অকবর ও তার দপ্তরের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ কেক, নতুন পোশাক, খেলনা, বিভিন্ন খাবার নিয়ে সুরাইয়ার জন্মদিন পালন করেন।

জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে জন্মদিন পালন ও তাকে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে ঢাকায় নিয়ে চিকিৎসা সহযোগিতা প্রদানের জন্য সন্তোষ প্রকাশ করেছেন সুরাইয়ার মা নাজমা বেগম।

নাজমা বেগম বলেন, ঘটনার পর প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে ঢাকায় সরকারিভাবে তার ও তার সুরাইয়ার সব ধরনের চিকিৎসা প্রদান করা হয়। কিন্তু মাঝে আর্থিক অনটনের কারণে প্রয়োজনীয় চিকিৎসার না পেয়ে সুরাইয়ার দুটি পা’র বল শক্তি হারিয়ে গেছে। নষ্ট হয়ে গেছে ডান চোখ। কিন্তুু জেলা প্রশাসক নিজে বাসায় এসে প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে আবারো সুরাইয়ার চিকিৎসাসহ সকল ভার গ্রহণের করায় তিনি খুশি। এজন্য তিনি প্রধানমন্ত্রীর দীর্ঘায়ু ও সুস্থতা কামনা করেন। একই সাথে জেলা প্রশাসক ও সাংবাদিকদের প্রতি নাজমা বেগম কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।