লোহাগড়ায় ধর্ষণে ৭ মাসের অন্তঃসত্ত্বা কিশোরী

প্রতীকী ছবি

:: লোহাগড়া প্রতিনিধি ::
নড়াইলের লোহাগড়ায় ধর্ষণের ফলে এক কিশোরী ৭ মাসের অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় কিশোরীর বাবা কাদের শেখ বাদী হয়ে লোহাগড়া থানায় ধর্ষণ মামলা করেছেন।

পুলিশ ধর্ষিতা কিশোরীকে উদ্ধার করে নড়াইল সদর হাসপাতালে ডাক্তারি পরীক্ষা সম্পন্ন করেছে এবং ওই কিশোরী আদালতে ২২ ধারায় জবানবন্দী প্রদান করেছে। তবে মামলা দায়েরের পর অভিযুক্ত নাহিদ এলাকা ছেড়ে পালিয়েছে। নাহিদ উপজেলার জয়পুর ইউনিয়নের চাচই গ্রামের নাসির শেখের ছেলে।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, নাহিদ শেখ (১৯) এক কিশোরী মেয়ের সাথে প্রায় দেড় বছর পূর্বে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলে। এরপর তাকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে গত ১২ জানুয়ারি চাচই গ্রামের মুক্তার শেখের বাড়িতে নিয়ে ধর্ষণ করে এবং এ ঘটনা কাউকে না বলার জন্য হুমকি দেন। ধর্ষক নাহিদের হুমকিতে কিশোরীটি ধর্ষণের ঘটনা চেপে যায়। পরবর্তীতে ধর্ষিতা কিশোরীর শারীরিক অবস্থার পরিবর্তন হলে ২১ জুলাই ধর্ষণের ঘটনাটি তার অভিভাবকদের জানায়।

কিশোরীর অভিভাবক নাহিদের বাবা-মাকে জানালে তারা কিশোরীর গর্ভপাত ঘটানোর জন্য মোটা অংকের টাকা দেয়ার প্রলোভন এবং গর্ভপাত না করলে বড় ধরনের ক্ষতি হবে মর্মে হুমকি দেয়।
পরে নিরুপায় হয়ে কিশোরীর বাবা বাদী হয়ে নাহিদকে আসামি করে লোহাগড়া থানায় বৃহস্পতিবার রাতে ধর্ষণ মামলা করেন।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা লোহাগড়া থানার এসআই মিল্টন কুমার দেবদাসের নেতৃত্বে একদল পুলিশ ধর্ষিতা কিশোরীকে উদ্ধার করে। শুক্রবার দুপুরে নড়াইল সদর হাসপাতালে ওই কিশোরির ডাক্তারি পরীক্ষা সম্পন্ন করেন এবং ওই কিশোরী জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আমাতুল মোর্শেদার আদালতে ২২ ধারায় জবানবন্দী প্রদান করেছে।

এ ব্যাপারে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা লোহাগড়া থানার এসআই মিল্টন কুমার দেবদাস জানান, আসামি নাহিদ শেখ গা ঢাকা দিয়েছে। তাকে আটকের চেষ্টা চলছে।