সরকার পানীয়জল সংকট নিরসনে প্রয়োজনমুখী প্রকল্প গ্রহণ করছে : মন্ত্রী তাজুল ইসলাম

খুলনা প্রতিনিধি:
স্থানীয় সরকার মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম এমপি বলেছেন, সরকার ২০৩০ সালের মধ্যে সবার জন্য পানীয়জল সরবরাহে দৃঢ় প্রতিজ্ঞাবদ্ধ। এ লক্ষ্যে ব্যাপক উদ্যোগ গ্রহণের পাশাপাশি এখন পানীয়জল সংকট নিরসনে প্রয়োজনমুখী প্রকল্প গ্রহণ করছে। তিনি বলেন জন্মগতভাবেই আমরা বাংলাদেশের মানুষ নানাবিধ প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবিলা করেই টিকে থাকি। তাই আমাদের সামনে যেকোনো সমস্যাই আসুক না কেন আমরা তার সমাধান করে সামনে এগিয়ে যেতে পারবো। বর্তমান সরকারের প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন বাস্তবায়নে তথা এদেশের মানুষের ভাগ্য উন্নয়নে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। আমরা এমডিজি অর্জন করেছি, এসডিজিও অর্জন করতে সক্ষম হবো। সরকার পানি, জ্বালানী, শিক্ষা, কর্মসংস্থানসহ সকল দিক নিয়ে কাজ করছে এবং সমস্যা নিরসনের ব্যাপারে অগ্রাধিকারভিত্তিক চেকলিস্ট তৈরি করা হয়েছে। দেশে দরিদ্রতা থাকবে না। প্রধানমন্ত্রী সবসময়ই চান সমস্যার সমাধান করে দেশকে উন্নততর পর্যায়ে নিয়ে যেতে যাতে মানুষের জীবনযাত্রার মান বৃদ্ধি পায়। তিনি উপকূলীয় এলাকার পানীয়জল সমস্যার ব্যাপারে সরকার সম্যক অবহিত বলে উল্লেখ করেন এবং বিদ্যমান সমস্যা নিরসনে তার মন্ত্রণালয় থেকে সবধরণের প্রচেষ্টা চালানোর আশ্বাস দেন।
তিনি বৃহস্পতিবার খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে মুক্ত মঞ্চে দু’দিনব্যাপী দ্বিতীয় উপকূলীয় পানি সম্মেলনে উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখছিলেন। তিনি আরও বলেন বর্তমান সরকারের উন্নয়ন প্রচেষ্টায় সরকারি প্রতিষ্ঠানের পাশাপাশি বেসরকারি স্বেচ্ছাসেবী প্রতিষ্ঠানও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে যার ফলে উন্নয়নে তৃণমূল পর্যায়ের মানুষ অংশ নিতে পারছে। মন্ত্রী খুলনা শহরের ব্যাপক উন্নয়নে সন্তুষ্টি প্রকাশ করে কেসিসির মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেকের সুযোগ্য নেতৃত্বের প্রশংসা করেন। মন্ত্রী পরে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে আয়োজিত দু’দিনব্যাপী দ্বিতীয় পানি সম্মেলনের সাফল্য কামনা করে উদ্বোধন ঘোষণা করেন।
খুলনা সিটি কর্পোরেশনের মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ সম্মেলনের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্য্য এমপি, ওয়ার্ল্ড ভিশন বাংলাদেশের ন্যাশনাল ডাইরেক্টর ফ্রেদ উইতেভেন, খুলনা বিভাগীয় কমিশনার লোকমান হোসেন মিয়া, জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের প্রধান প্রকৌশলী মো. সাইফুর রহমান। মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয়ের মঞ্জুরী কমিশনের সদস্য প্রফেসর ড. মুহাম্মদ আলমগীর। উদ্বোধন অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. মোহাম্মদ ফায়েক উজ্জামান। সূচনা বক্তব্য দেন ওয়ার্ল্ড ভিশনের মো. নূরুল আলম রাজু। সঞ্চালনা করেন এওসেডের শামীম আরেফিন। সম্মেলনে বৃহত্তর খুলনার সংসদ সদস্য, খুলনার জেলা প্রশাসক, বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি সংস্থার প্রতিনিধিবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। এর আগে সকালে সংসদ সদস্যদের সাথে অংশগ্রহণকারী বিভিন্ন প্রতিনিধিদের প্রশ্নত্তোর পর্বে সংসদ সদস্য ডা. মোজাম্মেল হোসেন, মীর মোস্তাক আহমদ রবি, মুস্তফা লুৎফুল্লা, মো. আকতারুজ্জামান বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন এবং সংশ্লিষ্ট এলাকার বিভিন্ন সমস্যা নিরসনে তাদের উদ্যোগ ও প্রচেষ্টার কথা ব্যক্ত করেন। দু’দিনব্যাপী এ সম্মেলন আজ শুক্রবার খুলনা ডিক্লারেশনের মাধ্যমে শেষ হবে। এর আগে মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী, মেয়র খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে পৌঁছালে উপাচার্য তাদের তার কার্যালয়ে স্বাগত জানান।