বাঘারপাড়ায় শিশু নিশানকে দুর্ঘটনায় ফেলে হত্যার পুনঃচার্জশিটে অভিযুক্ত ২

:: নিজস্ব প্রতিবেদক ::
যশোরের বাঘারপাড়ার জামদিয়া গ্রামের সাড়ে ৪ বছরের শিশু নিশানকে দুর্ঘটনায় ফেলে হত্যার অভিযোগে দুইজনকে অভিযুক্ত করে আদালতে পুনঃচার্জশিট দিয়েছে পিবিআই। মামলার তদন্ত শেষে আদালতে এ চার্জশিট জমা দেন তদন্তকারী কর্মকর্তা পিবিআই’র পরিদর্শক আব্দুল মান্নান।

অভিযুক্ত আসামিরা হলেন-জামদিয়া গ্রামের মৃত আহাদ আলীর ছেলে নছিমনচালক এমএম জাহিদ ওরফে আনোয়ার হোসেন ও তবিবর রহমানের ছেলে ইজিবাইকচালক লিয়াকত আলী।

মামলার অভিযোগে জানা গেছে, আসামি আনোয়ার হোসেনদের সাথে শিশু নিশানের পরিবারের পূর্বশত্রুতা চলে আসাছিল। এ ঘটনার জের ধরে আসামি আনোয়ার তার নছিমনে করে নিশানকে নিয়ে যায়।

এরপর পরিকল্পিতভাবে অপর আসামির ইজিবাইকে ধাক্কা দিয়ে হত্যা করে সড়ক দুর্ঘটনায় মৃত্যু হয়েছে বলে প্রচার করে। এ ব্যাপারে নিহতের মা সাজনা বেগম বাদী হয়ে দুইজনকে আসামি করে আদালতে একটি হত্যা মামলা করেন। আদালতের আদেশে ওই বছরের ২০ অক্টোবর হত্যা মামলা হিসেবে বাঘারপাড়া থানায় নিয়মিত মামলা হিসেবে রুজু হয়। মামলাটি প্রথমে থানা পুলিশ পরে সিআইডি পুলিশ তদন্তের দায়িত্ব পায়। মামলার তদন্ত শেষে ইজিবাইকচালক লিয়াকত আলীকে অভিযুক্ত ও আনোয়ার হোসেন জাহিদের অব্যহতির আবেদন করে আদালতে চার্জশিট জমা দেন তদন্তকারী কর্মকর্তা। মামলার বাদী চার্জশিটের উপর নারাজি আবেদন করলে পিবিআইকে পুনঃতদন্তের আদেশ দেন আদালত।

মামলার তদন্ত সূত্রে জানা গেছে, ঘটনার সকালে আনোয়ার তার নছিমনে মালামাল নিয়ে বিক্রির উদ্দেশে বাড়ি থেকে বের হয়। এ সময় পাড়ার বেশ কয়েকজন ছেলে-মেয়ে তার নছিমনে উঠে বসে। এ সময় আনোয়ার ধমক দিলে নিশান বাদে সকলে নেমে যায়। আনোয়ার বিষয়টি বুঝেও নিশানকে না নামিয়ে রাগ করে তাকে নিয়ে চলতে থাকে। কিছুদুর এগিয়ে গিয়ে একটি বাঁকে নিশানকে ধমক দেয় আনোয়ার। এ সময় নিশান চলন্ত নছিমন থেকে রাস্তায় লাফ দিয়ে পড়ে। এরমধ্যে লিয়াকত আলীর ইজিবাইক এসে নিশানকে চাপা দেয়ায় তার মৃত্যু হয়।

এ মামলার দীর্ঘ তদন্ত শেষে আটক আসামিদের দেয়া তথ্য ও স্বাক্ষীদের বক্তব্যে দুর্ঘটনায় ফেলে হত্যার অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় আদালতে এ চার্জশিট জমা দিয়েছেন তদন্তকারী কর্মকর্তা। চার্জশিটে অভিযুক্ত দুইজনকে আটক দেখানো হয়েছে।