বড় ভাইকে কুপিয়ে হত্যা করে মোটরসাইকেল চালিয়ে পালিয়ে গেল ছোটভাই

:: নূরুল হক, মণিরামপুর ::
বড় ভাইকে কুপিয়ে হত্যার পর মোটরসাইকেল চালিয়ে পালিয়ে গেলো ছোটভাই। বৃহস্পতিবার সকালে মণিরামপুর উপজেলার দেবীদাসপুর গ্রামে বড় ভাইয়ের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে প্রকাশ্যে হত্যার এ ঘটনা ঘটে। ঘটনায় নিহত মকবুল গাজী (৫৫) একজন সার ব্যবসায়ী। বাড়ির সাথেই তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। হত্যাকারী মাফুজার রহমান মাফু।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, ঘটনার সময় মকবুল গাজী নিজের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে বসা ছিলেন। এ সময় তার ছোটভাই মাফু ধরালো হাঁসুয়া হাতে দোকানে এসে ভাইকে এলোপাতাড়ি কুপাতে থাকে। কেউ কিছু বুঝে ওঠার আগেই নিজের মোটরসাইকেল চালিয়ে পালিয়ে যায় সে।
স্থানীয়রা মকবুল গাজীকে উদ্ধার করে মণিরামপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। পুলিশ লাশ উদ্ধার করে হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করে।

স্থানীয়রা জানিয়েছে জমি-জমা ও নিজেদের গাছগাছালি নিয়ে দুই ভাইসহ পরিবারের অন্যান্যদের মধ্যে দীর্ঘদিন বিরোধ চলে আসছিল। সদর ইউপি চেয়ারম্যান নিস্তার ফারুক জানান, তাদের বিরোধ মীমাংসার জন্য একাধিকবার শালিস বিচার করা হয়েছে। কিন্তু কেউ কাউকে ছাড় না দেয়ার কারণে তাদের বিরোধ সমাধান সম্ভব হয়নি।

একটি সূত্র জানায় বড়ভাইয়ের বিরুদ্ধে বিভিন্ন ধরনের কথা বলার পাশাপাশি মাফু কয়েকদিন ধরে বাড়িতে বসে হাঁসুয়া বালি-ধার দিয়েছে। ওই হাঁসুয়া দিয়ে কোপানো হয়েছে বড় ভাই মকবুল গাজীকে। মণিরামপুর থানার এসআই তপন কুমার সিংহ জানান, ঘটনাস্থলে পরিদর্শন করেছেন সহকারী পুলিশ সুপার রাকিব হাসান এবং থানার ওসি রফিকুল ইসলামসহ অন্যান্য পুলিশ কর্মকর্তারা।

থানার ওসি জানান, পারিবারিক কলহের জের ধরে এ ঘটনা ঘটেছে বলে প্রাথমিকভাবে জানতে পেরেছেন। নিহতের লাশ ময়না তদন্তের জন্য যশোর ২৫০ শয্যা হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে বলেও তিনি জানান। এ ঘটনায় থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছিল। হত্যাকারী মাফুকে খোঁজা হচ্ছে।

জরুরি বিভাগের চিকিৎসক ডাঃ অনুপ কুমার বসু জানান, হাসপাতালে আনার আগেই মৃত্যু হয়। বুকের বামপাশে গভীর ক্ষতের কারণে হার্ট ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় তার (মকবুল) মৃত্যু হয়েছে।

এদিকে ময়না তদন্ত শেষে নিহতের লাশ বিকেলে বাড়িতে পৌঁছায়। সেখানে জানাজা শেষে মরহুমের নিজ গ্রাম দেবিদাসপুরে পারিবারিক কবরস্থানে তার দাফন করা হয়েছে।