মডেল বাংলাদেশ দেখে বিদেশি বন্ধুরাও এখন ঈর্ষান্বিত: শেখ আফিল উদ্দিন এমপি

:: শেখ কাজিম উদ্দিন, বেনাপোল ::
৮৫ যশোর-১ (শার্শা) আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ শেখ আফিল উদ্দিন বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়নে রচিত মডেল বাংলাদেশ দেখে বিদেশি বন্ধুরাও এখন ঈর্ষান্বিত হচ্ছেন। ভাবছেন, কিভাবে একটি তলাবিহীন রাষ্ট্রকে উন্নয়নের রোল মডেল রাষ্ট্র হিসেবে তৈরি করা যায়। তাইতো আজ বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী কেবল এ দেশের নয়, তিনি এখন বিশ্ব নেতার আসন অলঙ্কৃত করেছেন। বিশ্ব নেতারা আমাদের প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে পরামর্শ নিচ্ছেন আর বলছেন কিভাবে তিনি বংলাদেশকে উন্নয়নের রোল মডেল হিসেবে চিহ্নিত করেছেন।

গতকাল বৃহস্পতিবার বেলা ১১টায় শার্শা উপজেলা পরিষদের মাসিক সভার পূর্বে স্থানীয় উপকারভোগীদের মাঝে নিজ তহবিলের নগদ অর্থ ও ঢেউটিনসহ ৫ লাখ টাকার চেক বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে একথা বলেন তিনি।

শার্শা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পূলক কুমার মন্ডলের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে শেখ আফিল উদ্দিন এমপি আরো বলেন, হেনরী কিসিঞ্জারের উপহাস করা সেই তলাবিহীন বাংলাদেশকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যে উন্নয়নের রোল মডেল রাষ্ট্র হিসেবে দাঁড় করিয়েছেন তার একমাত্র রহস্য সততা। ৭১’র যুদ্ধ পরবর্তী সময়ে বাংলাদেশের মানুষের অন্ন, বস্ত্র, বাসস্থান, চিকিৎসা, শিক্ষাসহ মানুষের মৌলিক চাহিদা পূরণে দেশ ছিলো সামর্থহীন। তারপরেও এদেশের ও বৈদেশিক পরাজিত শক্তিরা ভেবেছিলো যুদ্ধের মহানায়ক শেখ মুজিবর রহমানকে বাঁচিয়ে রাখলে তার সততা ও কর্ম দক্ষতা দিয়ে তিনি এ দুর্ভিক্ষময় রাষ্ট্রকে সবল করে তুলবেন। তাইতো সেসকল কাপুরুষের দল ৭৫’এ জাতির জনকসহ সপরিবারে হত্যার মিশন নিয়েছিলো। “রাখে আল্লাহ” মারে কে? বহু চড়াই উৎরাই পেরিয়ে ঘাতকদের বুলেটের আঘাত থেকে বেঁচে যাওয়া বঙ্গবন্ধু পরিবারের দু’কন্যার মধ্যে এক কন্যা তথা আজকের বাংলাদেশের হ্যাট্টিক প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শূন্য হাতে এদেশের প্রধানমন্ত্রী হয়। দলীয় নেতা-কর্মী ও এদেশের কিছু সৎ প্রশাসনিক কর্মকর্তাদের নিয়ে ভিশন-২০২১ রুপরেখা দেন। যা আজ বাস্তবায়ন হয়ে আমরা চলেছি উন্নয়নের মহাসড়কে।

শেখ আফিল উদ্দিন আরো বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সততা আর কর্ম দক্ষতার ফলে আজ গোটা বাংলাদেশ নয়, কেবল শার্শার উন্নয়ন দেখলেই বোঝা যাবে বাংলাদেশ কিভাবে উন্নত হচ্ছে। আজ দেখা যাচ্ছে, শার্শার কেবল কয়েকটি মানুষের বাসস্থান ভালো নয় কিছুদিন পরে এ উপজেলাতে আর একটি মানুষও খারাপ বাসস্থানে থাকবেন না। উন্নয়নের ধারাবাহিকতায় প্রত্যেক খারাপ বাসস্থানের মানুষদের বাড়ি করে দিচ্ছেন সরকার।

এসময় তিনি সরকারের উন্নয়নের অংশ হিসেবে শার্শা উপজেলাকে আগামী তিন মাসের মধ্যে শতভাগ বিদ্যুতায়িত এলাকা হিসেবে ঘোষণা দেয়ার আহবান জানান।

অনুষ্ঠানের সভাপতি ও শার্শা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তার সমাপ্তকরণ আলোচনায় হঠাৎ স্থানীয় সাংসদকে উন্নয়নমুখী ও সত্যবাদী এমপি হিসেবে গুণগান শুরু করেন। বলেন, বহুবার চেষ্টা করেছি সাংসদ শেখ আফিল উদ্দিন রাস্তার টাকা ও গরিবের বরাদ্দসহ বিভিন্ন উন্নয়নের টাকা আত্মসাৎ করছেন কি না তা দেখার জন্য। কিন্তু পারিনি। সরকারের বরাদ্দ হয়েছে ১০ কিলোমিটার রাস্তা ইটের সলিং হবে। দেখতে গিয়ে পেয়েছি রাস্তাটি পাকাকরণ হয়ে গেছে। কিভাবে সম্ভব। এভাবে বহু রাস্তাঘাট, স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসা, মসজিদ, হাসপাতাল, কমিউনিটি ক্লিনিক, বাজারসহ বিভিন্ন উন্নয়ন কাজে সরকারের বরাদ্দকৃত টাকার সাথে নিজের তহবিলের অর্থ দিয়ে জোগান দিয়ে সুন্দর দৃশ্যমান স্থাপনা করেছেন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন শার্শা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা সিরাজুল হক মঞ্জু, সাধারণ সম্পাদক আলহাজ নুরুজ্জামান, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মেহেদী হাসান, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান আলেয়া ফেরেদৗস, শার্শা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সৌতম কুমার শীল, প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা জয়দেব কুমার সিংহ, প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা লাল্টু মিয়া, শিক্ষা কর্মকর্তা আব্দুর রব, সমবায় কর্মকর্তা আক্কাস আলী, শার্শা থানার ভারপ্রাপ্ত অফিসার ইনচার্জ (ওসি) এম মশিউর রহমান, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মোজাফ্ফার হোসেন, বাগআঁচড়া ইউপি চেয়ারম্যান ইলিয়াছ কবির বকুল, উলাশী ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ আয়নাল হক, গোগা ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ আব্দুর রশিদ, পুটখালী ইউপি চেয়ারম্যান হাদিউজ্জামান, বেনাপোল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ বজলুর রহমান প্রমুখ।