খাতা পুনঃনিরীক্ষা: যশোর শিক্ষা বোর্ডে ফেল করা ৩০ শিক্ষার্থী পাস

:: মিরাজুল কবীর টিটো ::

যশোর শিক্ষা বোর্ডের এইচএসসির খাতা পুনঃনিরীক্ষণে অকৃতকার্য হওয়া ৩০ জন শিক্ষার্থী পাস করেছে। সেই সঙ্গে এফ গ্রেডসহ বিভিন্ন গ্রেড থেকে জিপিএ-৫ পেয়েছে ২৬ জন। শুক্রবার পুনঃনিরীক্ষার ফলাফল প্রকাশের পর এ তথ্য জানা গেছে।

বোর্ড সূত্রে জানা যায়, গত ১৭ জুলাই এইচএসসির ফলাফল প্রকাশ করা হয়। পরীক্ষার খাতা পুনঃনিরীক্ষার জন্য ১৮ জুলাই থেকে ২৫ জুলাই পর্যন্ত সময় নির্ধারণ করে দেয়া হয়। এ সময়ের মধ্যে কাক্সিক্ষত ফলাফল পাওয়া থেকে বঞ্চিত হওয়া ২৩ হাজার ১২৩জন শিক্ষার্থী টেলিটক মোবাইলের মাধ্যমে খাতা পুনঃনিরীক্ষার জন্য শিক্ষা বোর্ডে আবেদন করে।

আবেদন করা শিক্ষার্থীদের মধ্যে শিক্ষা বোর্ড কর্তৃপক্ষ ৮৭ জন শিক্ষার্থীর ফলাফল পরিবর্তন করেছে। এই পরিবর্তনের ফলে প্রকাশিত হওয়া মূল ফলাফলে অকৃতকার্য হওয়া ৩০ জন শিক্ষার্থী পাস করেছে।

সেই সাথে এফ গ্রেডসহ বিভিন্ন গ্রেড থেকে জিপিএ-৫ পেয়েছে ২৬ জন, এ গ্রেড ২৭ জন, এ মাইনাস ৬ জন, বি গ্রেড ১৮ জন, সি গ্রেড ৭ জন ও ডি গ্রেড পেয়েছে ৩ জন শিক্ষার্থী। এর মধ্যে এফ থেকে জিপিএ-৫ পেয়েছে ২ জন, এ গ্রেড ৩ জন, বি গ্রেড ১৫ জন, সি গ্রেড ৭ জন, ডি গ্রেড ৩ জন, সি গ্রেড থেকে বি গ্রেড পেয়েছে ৩ জন, বি থেকে এ গ্রেড ৩জন, বি থেকে এ মাইনাস ৬ জন, এ মাইনাস থেকে জিপিএ-৫ পেয়েছে ২ জন, এ মাইনাস থেকে এ গ্রেড পেয়েছে ২১ জন, এ গ্রেড থেকে জিপি এ-৫ পেয়েছে ২২ জন শিক্ষার্থী।

এ ব্যাপারে শিক্ষা বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক মাধব চন্দ্র রুদ্র জানান, খাতা দেখায় ভুল করায় পরীক্ষকদের শাস্তি দেয়া হয়। এ কারণে এ বছর এইচএসসি পরীক্ষার খাতা দেখায় ভুল কম হয়েছে। ভুল কম হওয়ায় খাতা পুনঃনিরীক্ষার জন্য গত বছরের চেয়ে এ বছর ১০ হাজার ৪৩৫ কম শিক্ষার্থী আবেদন করেছে। আবেদনের তুলনায় কম শিক্ষার্থীর ফলাফল পরিবর্তন করা হয়েছে।

তিনি জানান, গত বছর খাতা পুনঃনিরীক্ষার জন্য আবেদন করে ৩৩ হাজার ৫৫৮ জন শিক্ষার্থী। তার মধ্যে ফলাফল পরিবর্তন করা হয় ১০৮ জনের। এ বছর আবেদন করে ২৩ হাজার ১২৩ জন শিক্ষার্থী। ফলাফল পরিবর্তন হয়েছে ৮৭ জন শিক্ষার্থীর। এতে বোঝা যাচ্ছে পরীক্ষকরা আন্তরিকতার সাথে পরীক্ষার খাতা মূল্যায়ন করছেন।