কায়েমকোলা-ধর্মতলা রাস্তা সংস্কারের দাবিতে মানববন্ধন

::মিরাজুল কবীর টিটো::

যশোর সদর উপজেলার ধর্মতলা থেকে ঝিকরগাছা কায়েমকোলা বাজার পর্যন্ত ২৮ কিলোমিটার রাস্তার মধ্যে ২১ কিলোমিটার পথচারীদের চলাচলে জন্য মৃত্যুর ফাঁদে পরিণত হয়েছে। দীর্ঘদিন ধরে রাস্তাটি সংস্কার না করার কারণে এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে বলে জানান এলাকাবাসী।

রাস্তা সংস্কারের দাবিতে ধর্মতলার স-মিলের সামনে এলাকাবাসী রোববার মানববন্ধন করেছে। পরে সদর উপজেলার ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী কর্মকর্তা ও ভূমি অফিসার সৈয়দ জাকির হোসেন ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি শান্ত করেন।

সদর উপজেলার ধর্মতলার বাসিন্দা ও জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক সাঈদ সরদার জানান, রাস্তার মাঝে অনেক বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। রাস্তা দিয়ে পরিবহন চলাচল করাতো দূরের কথা মানুষের পায়ে হেঁটে চলাচল করতে গিয়ে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। প্রায় বাস চলাচল বন্ধ থাকছে।

আরবপুর ইউনিয়নের ৪ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহবায়ক মাহাবুর রহমান জানান, ধর্মতলার রাস্তাটি দিয়ে ক্যান্টমেন্ট, ধর্মতলা, আরবপুর, দেয়াড়া, ছুটিপুর, কাশিমপুর এলাকার ৪ লাখ মানুষ যাতায়াত করেন। ওই রাস্তা দিয়ে ইজিবাইক, রিকসা চলাচল করলে উল্টে যাত্রী আহত হচ্ছে। বৃষ্টি হওয়ায় রাস্তায় পানি জমে থাকায় রাস্তার কোনো জায়গায় গর্ত আর কোনো জায়গায় ভালো সেটা বোঝার উপায় নেই। পথচারীরা চলাচল করতে গিয়ে বিপাকে পড়ছেন। মানববন্ধন শেষে আরবপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সন্ত্রাসী বাহিনী পাঠান মানববন্ধন করা লোকজনকে মারার জন্য। একই তথ্য জানিয়ে আরবপুর ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ড মেম্বার তরিকুল ইসলাম জানান, ধর্মতলার রাস্তাটি সংস্কারের জন্য আরবপুর, দেয়াড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান কোনো উদ্যোগ না নেয়ায় রাস্তাটি মানুষের চলাচলে ক্ষেত্রে দুর্ভোগের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। তাই তিনিসহ এলাকাবাসী রাস্তা সংস্কারের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে দাবি জানিয়েছেন।

দেয়াড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আনিছুর রহমান জানান, ঈদের আগে তিনি ইউনিয়ন পরিষদের অর্থায়নে রাস্তার গর্তের ভেতরে এগার ট্রাক আধলা ইট ফেলেছেন।

আরবপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শাহারুল ইসলাম জানান, এ রাস্তাটি সংস্কারের জন্য ৫২ কোটি টাকার টেন্ডার হয়েছে। খুব শীঘ্রই রাস্তা সংস্কারের কাজ শুরু হবে। ইউনিয়ন পরিষদের অর্থায়নে রাস্তা সংস্কার করা সম্ভব নয়। যারা মানববন্ধন করেছেন, তারা এমপির লোক।

মানববন্ধনকারীদের মারতে সন্ত্রাসী পাঠানোর অভিযোগ বিষয়ে তিনি বলেন, এলাকাবাসী রাস্তা সংস্কারের জন্য মানববন্ধন করেছেন। এটা ভালো কাজ। তাহলে আমি তাদের মারতে সন্ত্রাসী পাঠাবো কেন?

সদর উপজেলার স্থানীয় সরকার প্রকৌশল বিভাগের প্রকৌশলী শহিদুল ইসলাম জানান, ধর্মতলা, ছুটিপুরের রাস্তার কাজের টেন্ডার প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। খুব শিগগির এর কাজ শুরু হবে।

উপজেলার ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী কর্মকর্তা ও ভূমি অফিসার সৈয়দ জাকির হোসেন জানান, তিনি খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে যান। তিনি আন্দোলনকারীদের জানান, সদরের নারাঙ্গনগালীতে রাস্তা সংস্কারের কাজ শুরু হয়েছে। এরপর ধর্মতলায় রাস্তার কাজও শুরু করা হবে। বৃষ্টির কারণে রাস্তার কাজ শুরু হয়নি। তবে সংস্কারের আগে রাস্তা চলাচলের উপযোগি করে দেয়া হবে বলে আশ^াস দিলে এলাকাবাসী শান্ত হন।

আরবপুর ইউনিয়ন পরিষদের ৫ নম্বর ওয়ার্ড মেম্বার তরিকুল ইসলামের সভাপতিত্বে মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন ৪ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহবায়ক মাহাবুর রহমান, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক সাঈদ সরদার, মোশারেফ হোসেন, লুৎফর রহমান, আসাদুজ্জামান, টিটো গাজী প্রমুখ।