খেলার ছলে ট্রেনে উঠে হারিয়ে যাওয়া এক শিশুর বাড়ি ফেরার গল্প

::জামির হোসেন, কালীগঞ্জ::

খেলার ছলেই ট্রেনে উঠেছিল ৭/৮ বছরের শিশু চাঁদসহ তার সমবয়সী ৩ বন্ধু। কিছুক্ষণ পর ট্রেনটি চলতে শুরু করে। তখন চলন্ত ট্রেন থেকেই ঝাঁপ দিয়ে নেমে পড়ে দুইজন। ভয়ে নামতে পারেনি শিশু চাঁদ। ট্রেনে চেপেই চুয়াডাঙ্গা থেকে পৌছে যায় কালীগঞ্জ মোবারকগঞ্জ রেল ষ্টেশনে। নেমে পড়ে সেখানে। বাড়ি খুঁজতে খুঁজতে কালীগঞ্জ শহরে এসে পথ হারিয়ে ফেলে।

সন্ধ্যায় মেইন বাসস্ট্যান্ডের এক চায়ের দোকানে বসে কাঁদতে থাকে। অবুঝ ওই শিশুর কান্না দেখে এগিয়ে আসেন কালীগঞ্জে হেলথ অফিসের পিজুস বিশ্বাস। তিনি প্রথমে শিশুটির পরিচয় জানার চেষ্টা করেন। ব্যর্থ হয়ে রাতে শিশুকে নিয়ে আসেন প্রেসক্লাবে।

প্রেসক্লাব নেতৃবৃন্দ শিশুর কাছ থেকে জানতে পারেন তার বাড়ি চুয়াডাঙ্গা শহরের বড়বাজারে। আর তার বাবা উজ্জল একজন ট্রাক হেলপার। পরে চুয়াডাঙ্গা পুলিশের সহায়তায় রাত সাড়ে ১০ টার শিশুর অভিভাবকদের খোঁজ পান সাংবাদিকরা। মোবাইলে শিশুটির দাদা জানান কালীগঞ্জের দুলালমুন্দিয়া গ্রামের ইন্তাজ তাদের আত্মীয়। তার কাছে শিশুকে হস্তান্তরের অনুরোধ করেন। রাত প্রায় ১১ টার দিকে ইন্তাজের কাছে শিশুকে তুলে দেন সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ।

শিশুটির স্বজনরা জানায়, চাঁদ চুয়াডাঙ্গা পৌর কলেজপাড়া প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৩য় শ্রেণির ছাত্র। ওইদিন বন্ধুদের সাথে খেলার ছলেই সে ট্রেনে চড়ে হারিয়ে গিয়েছিল।