যশোর ভেকুটিয়ার শিশু ইয়াসিন হত্যায় বাবা অভিযুক্ত

::নিজস্ব প্রতিবেদক::

নিজের ছেলেকে হত্যা করে অভিযুক্ত হলেন যশোর সদর উপজেলার ভেকুটিয়া গ্রামের কারিগরপাড়ার ওয়াসিম হোসেন বিশ্বাস। তার শিশুপুত্র ইয়াসিনকে হত্যা করার প্রমাণ পাওয়ায় তাকে অভিযুক্ত করে চার্জশিট দিয়েছে সিআইডি পুলিশ।

মামলার তদন্ত শেষে আদালতে চার্জশিট জমা দেন তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই ফকরুল ইসলাম। অভিযুক্ত ওয়াসিম ওই গ্রামের মহসীন আলীর ছেলে। এই হত্যা মামলার বাদি ছিলেন অভিযুক্ত ওয়াসিম।

মামলার অভিযোগে জানা গেছে, ২০১৮ সালের ২ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যায় শিশু ইয়াসিন বাড়ি না ফেরায় খোঁজাখুঁজি শুরু করে স্বজনরা। রাত ৮টার দিকে ভেকুটিয়া বাজারের কাছে একটি ধানক্ষেতের মধ্যে শিশু ইয়াসিনের মরদেহ পাওয়া যায়। ইয়াসিনের মৃত্যু রহস্যজনক হওয়ায় অপমৃত্যু মামলা করে ময়না তদন্তের জন্য লাশ হাসপাতাল মর্গে পাঠায় পুলিশ। ময়নাতদন্ত রিপোর্টে ইয়াসিনকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়েছে বলে উল্লেখ করা হয়।

ওই বছরের ১৩ আগস্ট নিহত ইয়াসিনের বাবা ওয়াসিম হোসেন বাদী হয়ে অপরিচিত ব্যক্তিদের আসামি করে কোতোয়ালি থানায় একটি হত্যা মামলা করেন। মামলাটি প্রথমে থানা পুলিশ পরে সিআইডি পুলিশ তদন্তের দায়িত্ব পায়।

মামলার তদন্ত সূত্রে জানা গেছে, মামলার তদন্তকালে মামলার বাদী নিহতের বাবা ওয়াসিম হোসেন নিজেই ছেলেকে হত্যা করে মর্মে তথ্য পাওয়া যায়। শিশু ইয়াসিন হত্যার ব্যাপারে মা ফজিলা বেগমসহ দুইজন আদালতে স্বাক্ষীর জবানবন্দী দেয়। স্বাক্ষীদের জবানবন্দীতে হত্যাকারী নিহতের বাবা ওয়াসিম হোসেন বলে জানা যায়। পরে ওয়াসিমকে আটক করে আদালতে সোপর্দ করা হলে হত্যার কথা স্বীকার করে আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দী দেন।

ওয়াসিম তার স্ত্রী ফজিলা বেগমকে তাড়িয়ে অন্যত্র বিয়ে করার সিদ্ধান্ত নেয়। ফজিলা ছেলে ইয়াছিনের মায়ায় বাড়ি ছেড়ে না যাওয়ায় ছেলেকে হত্যার পরিকল্পনা করে। পরিকল্পনা অনুযায়ী ঘটনার দিন বিকেলে ছেলে ইয়াসিনকে ডেকে নিয়ে শ্বাসরোধ করে হত্যার পর ধানক্ষেতে ফেলে বাড়িতে চলে আসে। বাড়ির অন্যান্য সদস্যদের সাথে ছেলে ইয়াসিনকে খোঁজাখুঁজি করে ধানক্ষেত থেকে লাশ উদ্ধার করে।

এ মামলার তদন্ত শেষে আটক নিহতের বাবা ওয়াসিমের দেয়া তথ্য ও স্বাক্ষীদের বক্তব্যে হত্যার সাথে জড়িত থাকায় তাকে অভিযুক্ত করে আদালতে এ চার্জশিট জমা দিয়েছেন তদন্তকারী কর্মকর্তা। চার্জশিটে অভিযুক্ত ওয়াসিম হোসেন বিশ্বাসকে আটক দেখানো হয়েছে।