‘১১হাজার ভোল্টেজের তারে ঝুলছিলেন জালাল’

::নিজস্ব প্রতিবেদক::

বৈদ্যুতিক লাইন মেরামত করতে এসে মুহূর্তের মধ্যে লাশ হলেন জালাল ফকির (৪১)। মারা যাওয়ার পরেও ১১ হাজারের ভোল্টেজের তারে ঝুলছিলেন তিনি।

মঙ্গলবার দুপুর পৌনে ১২ টার দিকে যশোর শহরের খোলাডাঙ্গার আয়েশা আবেদ ফাউন্ডেশনের সামনের একটি বৈদ্যুতিক পিলারে মর্মান্তিক ঘটনাটি ঘটে।

নিহত জালাল ফকির যশোর ওয়েস্টজোন পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন লিমিটেডে (ওজোপাডিকো) লাইনম্যান হিসেবে কর্মরত ছিলো। তিনি নেত্রকোনার পূর্বধলা উপজেলার জেতিয়াবর গ্রামের হালিম ফকিরের ছেলে।

ওজোপাডিকোর সাব ডিভিশনের ইঞ্জিনিয়ার রবিউল করিম জানান, বৈদ্যুতিক পিলারে উঠে তার সংযোগ মেরামত করছিলেন জালাল ফকির। সুইজ অফ করার আগেই তিনি তারে হাত দিলে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে ঝুলে থাকে।

যশোর ফায়ার সার্ভিসের সিনিয়র স্টেশন অফিসার ফরহাদ হোসেন জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে তাকে উদ্ধার করে যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে আনা হয়। এ সময় জরুরি বিভাগের চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

চিকিৎসক আহমেদ তারেক সামস জানান, তাকে মৃত অবস্থায় হাসপাতালে আনা হয়। এদিকে, জালাল ফকিরের দেহ যখন তারে ঝুলছিলো তখন ঘটনাস্থলে ছুটে আসেন অনেক নারী পুরুষ। তারা অভিযোগ করেন কর্তৃপক্ষের অসাবধানতায় লাইনম্যান বিদ্যুৎস্পৃষ্টে মারা গেলো। সে পিলারে ওঠার আগে যদি বৈদ্যুতিক সুইচ বন্ধ করা হতো তাহলে মর্মান্তিক ঘটনায় শিকার হয়ে তাকে মরতে হতো না।