যশোর পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটে ফের চালু হওয়ার দু’বছরেও শিক্ষার্থী শূন্য হোস্টেল

::মিরাজুল কবীর টিটো::

যশোর পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের হোস্টেল থাকলেও শিক্ষার্থীরা থাকছে বাইরের ছাত্রাবাসে। এ কারণে দুই বছর আগে কলেজ কর্তৃপক্ষ হোস্টেল খুললেও সেটি রয়েছে শিক্ষার্থী শূন্য। ফলে হোস্টেলে শিক্ষার্থী উঠানোর জন্য বৃহস্পতিবার কলেজে শিক্ষক কাউন্সিলের সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সভায় সিদ্ধান্ত হয় শিক্ষার্থী উঠানোর জন্য শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে আবেদনপত্র চাওয়া হবে। আগামী রোববার থেকেই আবেদনপত্র চাওয়া হবে বলে এতে জানানো হয়।

পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের পূর্বপাশে হোস্টেল রয়েছে ছাত্রদের ও পশ্চিমপাশে অবস্থিত ছাত্রী হোস্টেল। ছাত্রদের থাকার জন্য ছাত্র হোস্টেলে রয়েছে ২৪০টি সিট এবং ছাত্রী হোস্টেলে ৬০ জন ছাত্রী থাকার ব্যবস্থা রয়েছে। অথচ ছাত্র হোস্টেলে থাকার জন্য কোনো ছাত্র আবেদন করেনি।

অন্যদিকে ছাত্রী হোস্টেলে ৬০টি ছিটের বিপরীতে থাকার জন্য ১৬ জন ছাত্রী আবেদন করেছে। আরো কয়েকজন ছাত্রীর কাছ থেকে আবেদনপত্র নিয়ে কলেজ কর্তৃপক্ষ অল্প সময়ের মধ্যে ছাত্রী হোস্টেল চালু করার উদ্যোগ নেবে। তবে কোনো ছাত্র হোস্টেলে থাকার জন্য আবেদন না করায় ছাত্র হোস্টেল চালু করার বিষয় নিয়ে চিন্তিত হয়ে পড়েছে কলেজ কর্র্তৃপক্ষ।

কলেজ সূত্র জানায়, সন্ত্রাসীমূলক কর্মকাণ্ডের কারণে দীর্ঘদিন যশোর পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের ছাত্র হোস্টেল প্রশাসনের পক্ষ থেকে ২০১২ সালে বন্ধ করে দেয়া হয়। পাঁচবছর বন্ধ থাকার পর কলেজ কর্তৃপক্ষ প্রশাসনের সাথে আলোচনার পর ২০১৭ সালে নভেম্বর মাসে হোস্টেল খোলা হয়। অথচ হোস্টেল খোলার দুই বছর পরেও হোস্টেলে কোনো ছাত্র উঠেনি। এ কারণে হোস্টেলের কার্যক্রম এখনও বন্ধ রয়েছে।

কলেজের ইলেকট্রিক্যাল বিভাগের তৃতীয় বর্ষের ছাত্র আশফাকুজ্জামান বলেন, আমাদের কলেজের হোস্টেল খোলা আছে। আমরা জানতাম না। তাই কলেজের পাশের এলাকার ছাত্রাবাসে থাকি। তাহলে বাইরের ছাত্রাবাসে না থেকে কলেজের হোস্টেলে থাকতাম।

একই কথা জানান একই বিভাগের ছাত্র জাকির হোসেন, আশরাফুল ইসলামসহ আরো অনেকে।
এ ব্যাপারে কলেজের অধ্যক্ষ জিএম আজিজুর রহমান জানান, কলেজের হোস্টেল চালুর জন্য চেষ্টা করা হচ্ছে। হোস্টেল চালু করার জন্য ৫০ জন ছাত্র বা ছাত্রী থাকতে হবে। ছাত্রী হোস্টেলে থাকার জন্য ১৬ জন আবেদন করেছে। আরো কিছু ছাত্রীর কাছ থেকে আবেদন নেয়ার পর ছাত্রী হোস্টেল চালু করা হবে। কিন্তু ছাত্র হোস্টেলের জন্য কোনো ছাত্র আবেদন করেনি। এ কারণে এ হোস্টেলটি তাড়াতাড়ি চালু করা সম্ভব হবে না।