ট্রেন থেকে পা পিছলে মুহূর্তেই লাশ ভানু বিবি

::নিজস্ব প্রতিবেদক::

শনিবার দুপুর ২টা ৩০ মিনিট। যশোর রেলস্টেশনে ফ্লাটফর্মের নিচে রক্তাক্ত অবস্থায় পড়ে আছে ভানু বিবি (৬৫) নামে এক নারীর দেহ। সামান্য দুরেই পড়েছে কেটে যাওয়া দুইটি পা। তাকে ঘিরে রয়েছে শত শত নারী পুরুষ। সবার দিকে ফ্যাল ফ্যাল করে তিনি তাকাচ্ছেন। যেনো তিনি বলতে চাইছেন আমাকে বাঁচাও। কিন্তু মুখ ফুটে কথা বের হচ্ছে না তার। চোখ বেয়ে পড়ছে অশ্রু। নেমে আসতে থাকে দুই চোখের পাতা। এভাবেই মৃত্যুর কোলে ঢোলে পড়েন ভানু বিবি।

জানা গেছে, ভাইয়ের মেয়েকে বিদায় জানিয়ে ট্রেন থেকে নামার সময় পা পিছলে পড়ে যাওয়ার পর ট্রেনে কেটে মারা গেলেন তিনি। ভানু বিবি যশোর শহরের শংকরপুর মুরগি ফার্ম এলাকার মৃত বেলায়েত আলীর স্ত্রী। স্বজনরা জানিয়েছেন, কয়েকদিন আগে ভানু বেগমের ভাই আক্কাজ আলীর মেয়ে সালমা বেগম বেড়াতে আসেন।

সালমা বেগম ঢাকায় গামেন্টস শ্রমিকের কাজ করেন। ঘটনার দিন তাকে ট্রেনে তুলে দিতে রেলস্টেশনে আসেন তিনি।

ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বেনাপোল থেকে ছেড়ে আসা ঢাকাগামী ট্রেনে উঠিয়ে দিয়ে ভানু বিবি নিচে নামার আগেই ট্রেন চলতে শুরু করে। এ সময় তিনি তড়িঘড়ি করে নামার সময় পা পিছলে নিচে পড়ে যান। তখন ট্রেনের চাকা তার দুই পায়ের উপর দিয়ে চলে যায়। একপাশে ওই নারীর শরীর অপর পাশে পড়ে ছিলো বিচ্ছিন্ন হয়ে যাওয়া তার দুইটি পা। দুর্ঘটনার কিছু সময় পর মারা যান ভানু বিবি।

যশোর রেলওয়ে ফাঁড়ির ইনচার্জ তারিক আহমেদ দৈনিক স্পন্দনকে জানান, ট্রেনে কেটে ভানু বিবির দুই পা বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। দুর্ঘটনার খবর শুনে ঘটনাস্থল থেকে ভানু বেগমকে উদ্ধার করে যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়।

জরুরি বিভাগে দায়িত্বরত চিকিৎসক কল্লোল কুমার সাহা জানান, ওই নারীকে মৃত অবস্থায় হাসপাতালে আনা হয়। হাসপাতালে পৌঁঁছানোর অনেক আগেই তিনি মারা গেছেন।

বাড়ি থেকে হাসতে হাসতে একজন নারী বের হয়ে কিছু সময় পর তার মৃত্যুর ঘটনায় পরিবারে শোকের ছায়া নেমে এসেছে।