পানির অভাব, মণিরামপুরে পাট নিয়ে কৃষকদের ভোগান্তি

::আব্দুল মতিন, মণিরামপুর::

পাট নিয়ে ভোগান্তির শেষ নেই যশোরের মণিরামপুরের চাষিদের। চাহিদা মতো বৃষ্টি না হওয়ায় জাগ দেয়ার জায়গা পাচ্ছেন না কৃষকরা। জমি থেকে পাট কাটছে না অনেকে। আবার কেউ কেউ পাট কেটে ফেলে রেখেছেন, পচানোর জন্য জাগ দিতে পারছে না।

উপজেলা কৃষি অফিস জানায়, এ বছর মণিরামপুর উপজেলায় ৫ হাজার ৩শ’ হেক্টর জমিতে পাট চাষ হয়েছে। এখানকার চাষিরা মূলত শ্রাবণ-ভাদ্র মাসে জমি থেকে পাট কেটে আমন ধান চাষ করে থাকেন। কিন্তু পর্যাপ্ত বৃষ্টিপাত না হওয়ায় এবার তা সম্ভব হবে না এমন আশঙ্কা চাষিদের।

দেবীদাসপুর গ্রামের চাষি নজরুল ইসলাম এ বছর ৪৪ শতক জমিতে পাট চাষ করে চরম ভোগান্তির মধ্যে পড়েছেন বলে জানান। তিনি জানান, জমি থেকে পাট কাটা হয়েছে, এখন পানিতে জাগ দিয়ে পঁচানোর পর আঁশ ছাড়ানোর কথা, কিন্তু পচন দেয়ার জায়গা না পাওয়ায় রাস্তায় ফেলে রেখেছেন।

একই কথা বললেন, আম্রঝুটা গ্রামের চাষি শহিদুল ইসলাম ও মকবুল হোসেন। আগরহাটি গ্রামের চাষি জালাল উদ্দিন বলেন, পাট চাষ করে এমন বিপদে পড়েছি মনে হচ্ছে আর কখনো পাট চাষ করতে যাবো না।

তিনি জানান, এ বছরে বৃষ্টিপাত কম হওয়ায় খালে-বিলে কোথাও নেই পানি। পাট নিয়ে কোথাও পচানোর জায়গা মিলছে না। তিনি ক্ষোভের সাথে জানান, মনে হচ্ছে ক্ষেতের পাট শুকিয়ে জ্বালানি তৈরি করি।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা হীরক কুমার সরকার জানান, পাট নিয়ে যে অবস্থা চলছে তাতে এ মুহূর্তে চাষিদের রিমন পদ্ধতির বিকল্প নেই।