যশোর ২৫০ শয্যা হাসপাতাল: ২৫ দিনে ৮৬ ডেঙ্গু রোগী শনাক্ত, ১৪০০ জনের পরীক্ষা

::বিল্লাল হোসেন::

যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে গত ২৫ দিনে জ্বরে আক্রান্ত ১ হাজার ৪০০ রোগীর ডেঙ্গু পরীক্ষা হয়েছে। এরমধ্যে ৮৬ জনের শরীরে ডেঙ্গুর অস্তিত্ব পাওয়া গেছে।

প্যাথলজি বিভাগের ইনচার্জ গোলাম মোস্তফা জানান, চিকিৎসকের পরীক্ষা নিরীক্ষা লেখা ব্যবস্থাপত্র আনলেই রোগীদের বিনামূল্যে ডেঙ্গুজ্বর পরীক্ষা করা হচ্ছে।

সরেজমিনে দেখা গেছে, প্রতিদিন সকাল থেকেই প্যাথলজি বিভাগে রোগীদের উপচে পড়া ভিড়। অধিকাংশ এসেছেন ডেঙ্গুজ্বর পরীক্ষা করার জন্য।

মেডিসিন বিভাগের এক চিকিৎসক জানান, সারাদেশে ডেঙ্গুজ্বরের প্রকোপ বেড়েছে। তাই কারো জ্বর হলে কোন রকম ঝুঁকি না নিয়ে ডেঙ্গু পরীক্ষা করতে বলা হচ্ছে। রোগীর জ্বরের বর্ণনা শুনে প্রাথমিক অবস্থায় ডেঙ্গু মনে না হলেও নিশ্চিত হওয়ার জন্য পরীক্ষা নিরীক্ষা করতে পাঠাচ্ছেন।

বহির্বিভাগে অবস্থান করে দেখা গেছে, সামান্য জ্বরেই অনেকেই ছুটছেন হাসপাতালে। এতে রোগীর চাপ সামলাতে হিমশিম খাচ্ছেন চিকিৎসকেরা। চিকিৎসা দিতে গিয়েও পড়ছে বিপাকে।

ফারহান, বিথী, সাবিনা খাতুন, শুকুর আলী, শরিফুল ইসলাম, সৌরভ হোসেনসহ অনেক রোগী জানান, ডেঙ্গুজ্বর মানেই এখন বড় আতঙ্ক। তাই জ্বর হওয়ার পর সেটা নিশ্চিত হওয়ার জন্য চিকিৎসকের কাছে এসেছি। ডেঙ্গুজ্বর পরীক্ষা না করা পর্যন্ত কোনোভাবেই মনকে স্থির করতে পারছিনা।

সূত্র জানায়, বিনামূল্যে ডেঙ্গুজ্বর পরীক্ষা করার কারণে রোগীরাও হুমড়ি খেয়ে পড়ছে। এই সংক্রান্ত রোগীর চাপে অন্য রোগের জন্য পরীক্ষা করতে আসা মানুষেরও হয়রানি ও দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক আবুল কালাম আজাদ লিটু জানান, বর্তমান সময়ে ডেঙ্গুজ্বর একটি ফ্যাক্ট হয়ে দাঁড়িয়েছে। তাই ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশনা অনুযায়ী জ্বরের রোগী আসলেই আগে ডেঙ্গু পরীক্ষা করানো হচ্ছে। যাদের ডেঙ্গু ধরা পড়ছে তাদের ভর্তি করে চিকিৎসাসেবা প্রদান করা হচ্ছে।