তৃতীয় স্ত্রী হিসেবে স্কুলছাত্রীকে তুলে নিয়ে গিয়ে বিয়ে

প্রতীকী ছবি

::চৌগাছা প্রতিনিধি::

যশোরের চৌগাছায় ৬ষ্ঠ শ্রেণির এক ছাত্রীকে অপহরণের পর জোরপূর্বক বিয়ে করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। শনিবার রাতে চৌগাছা থানা পুলিশ মেয়েটিকে ঝিনাইদহ থেকে উদ্ধার করে। এখন সে উপজেলা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। এ ঘটনায় থানায় একটি মামলা করেছে মেয়েটির পিতা।

পরিবার সূত্রে জানা যায়, ২৮ আগস্ট মেয়েটি বাড়িতে একা ছিল। এ সময় নারায়ণপুর ইউনিয়নের কিসমতখানপুর গ্রামের তিব্বত ও তার ভায়রা মোহন তাকে অজ্ঞান করে অপহরণ করে। পরে তাকে ঝিনাইদহের একটি হাসপাতালে ভর্তি করে। জ্ঞান ফিরলে মেয়েকে মোহন (৩৫) জোর করে বিয়ে করেন। মোহনের এটা তৃতীয় বিয়ে।

মেয়েটির বাবা বলেন, আমার মেয়ে ৬ষ্ঠ শ্রেণিতে পড়ে। তার বয়স এখন ১১ বছর ৬ মাস। মেয়ে আমাকে বলেছে তাকে জোর করে বিয়ে করা হয়েছে। তাকে সে সময় বলা হয়েছিল যদি সে এই বিয়েতে রাজি না হয় তাহলে তার ভাইকে খুন করবে। বিয়ের কাবিনে নাকি মেয়ের বয়স দেয়া হয়েছ ১৯ বছর। আমি এ ঘটনার বিচার চাই।

জরুরি বিভাগের দায়িত্বরত চিকিৎসক সুরাইয়া পারভীন বলেন, মেয়েটিকে মানসিক ডিপ্রেশনের (এইচসিআর) রোগী হিসেবে ভর্তি রাখার পরামর্শ দিয়েছি।

থানার এএসআই নজরুল ইসলাম বলেন, এ ঘটনায় থানায় একটি মামলা হয়েছে। আসামিদের আটক করতে অভিযান চালানো হচ্ছে।