নতুন ঘর হাসি ফুটিয়েছে ফুলজানদের মুখে

অসীম মোদক, মহেশপুর:
মাঠে এক চিলতে জমি নেই। নেই মাথা গোঁজার ঠাঁই। পরের জমিতে দিন মজুরের কাজ করে চলে সংসার। এ হতদরিদ্র ফুলজান বেগমের বসবাস ঝিনাইদহের মহেশপুর উপজেলার ভবনগর গ্রামে। কান্না যার নিত্য সঙ্গী সেই ফুলজান বেগমের মুখে আজ হাসির ঝিলিক। নতুন ঘর পেয়ে একবারে আনন্দে আত্মহারা ফুলজান। পেয়েছেন সাজানো নতুন ঘর, নিমিষেই ভুলে গেছেন সব দুঃখ। গত শনিবার ঝিনাইদহ জেলা প্রশাসক সরোজ কুমার নাথ মহেশপুর উপজেলার সীমান্তবর্তী ভবনগরের গুচ্ছ গ্রামে অসহায় ৫টি পরিবারের কাছে নতুন হস্তান্তর করেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন মহেশপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাশ্বতী শীল,উপজেলা প্রকল্প বাস্তবানয় কর্মকর্তা মেহেরুন নেছা,শ্যামকুড় ইউপি চেয়ারম্যান আমানউল্লা হকসহ স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তি।
৭ লাখ ২৫ হাজার টাকা ব্যয়ে নির্মিত ঘরগুলো অসহায় মানুষগুলোকে নতুনভাবে বাঁচার স্বপ্ন দেখিয়েছে। ঘরপ্রাপ্ত আলেয়া খাতুন জানান, রাতে অন্যের ঘরের বারান্দায় ঘুমাতাম। এখন নিজের ঘরে ঘুমাবো এর চেয়ে খুশি আর হতে পারে না।
শ্যামকুড় ইউনিয়ন চেয়ারম্যান আমানউল্লা হক জানান, ঘরপ্রাপ্ত ফারজান বেগম, ফুলজান বেগম, আলেয়া খাতুন, সাহিদা খাতুন ও মনোয়ারা খাতুন একেবারেই অসহায়। নেই তাদের কোন জমি, নেই কোনো ঘর, তারা পরের জমিতে কাজ করে সংসার চালায়। তারা এখন মাথা গোঁজার ঠাঁই পেয়েছেন।