শৈলকুপা পৌরমেয়র বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ

::ঝিনাইদহ প্রতিনিধি::

ঝিনাইদহের শৈলকুপা পৌরসভার মেয়র ও পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি কাজী আশরাফুল আজমের বিরুদ্ধে দুর্নীতি ও নানা অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। রোববার দুপুরে শৈলকুপা উপজেলা পরিষদ মিলানায়তনে এক পাল্টা সংবাদ সম্মেলনে এ অভিযোগ করেন উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শিকদার মোশাররফ হোসেন সোনা।

সংবাদ সম্মেলনে বিভিন্ন ইউনিয়নের চেয়ারম্যান, আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

সাংবাদ সম্মেলনে উপজেলা চেয়ারম্যান বলেন, দীর্ঘদিন ধরে পৌরসভার নাম ভাঙিয়ে পৌর মেয়র ও আওয়ামী লীগ নেতা আশরাফুল আজম ইউনিয়ন থেকে আসা ভ্যান, রিকসা ও বিভিন্ন যানবাহন থেকে জোরপূর্বক অর্থ আদায় করছে।

এছাড়াও পৌর গোরস্থানের নামে নাগরিকদের কাছ থেকে চাঁদা আদায় করছে, যেখানে পৌরসভায় গোরস্থানের কোনো অস্তিত্ব নেই। পৌরবাসীকে জিম্মি করে কথায় কথায় নাগরিক সেবা বন্ধ করে দেন মেয়র আশরাফুল আজম। সম্প্রতি এডিস মশা নিধনের জন্য বরাদ্ধকৃত ১২ লাখ টাকা আসলেও তা যথাযথভাবে ব্যয় না করে আত্মসাতের চেষ্টা করছে। এমন নানা ঘটনার প্রতিবাদ করায় ক্ষিপ্ত হয়ে উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি শিকদার মোশাররফ হোসেন সোনা ও তার ছেলে ওয়াহেদুজ্জামান ইকুর বিরুদ্ধে শুক্রবার সংবাদ সম্মেলন করে মিথ্যাচার করেছে। মূলত মেয়র নিজের দুর্নীতিকে ধামাচাপা ও আওয়ামী লীগে কোন্দল সৃষ্টি করার ঘটনাগুলো আড়াল করার জন্যই ভিত্তিহীন তথ্য দিয়ে অপপ্রচার চালাচ্ছেন।

সাংবাদ সম্মেলনে পৌরমেয়র ও পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি কাজী আশরাফুল আজমের বিরুদ্ধে অভিযোগ করা হয় তিনি বিভিন্ন রাজাকার সন্তানদের সাথে নিয়ে আওয়ামী লীগের বিরোধীতা করে আসছেন। বিগত সংসদ নির্বাচনে মেয়র আওয়ামী লীগ প্রার্থী আব্দুল হাই এমপির বিরোধীতাও করেছিলেন। একটি বেসরকারি টিভি চ্যানেলে লাইভ সাক্ষাতকারে সরাসরি বিরোধীতা করেছিলেন। থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা আরিফ রেজা মন্নু একজন কুখ্যাত রাজাকার পরিবারের সন্তান। এতে দলের ভাবমুর্তি ক্ষুন্ন হচ্ছে ও সাংগঠনিক অবস্থা দুর্বল হচ্ছে বলেও তিনি অভিযোগ করেন।

সাংবাদ সম্মেলনে লিখিত অভিযোগে আরোও জানানো হয়, মেয়র কাজী আশরাফুল আজম একজন ভুয়া মুক্তিযোদ্ধা, ভূমি দস্যু, চাঁদাবাজ। তার ছেলে কাজী রাজিবের অত্যাচারে সংখ্যালঘু ব্যবসায়ীরা আতঙ্কে রয়েছে। সে পান বিক্রেতা থেকে শুরু করে গমের ডিলার, স্বর্ণ ব্যবসায়ীদের কাছ থেকেও চাঁদা আদায় করে। এসবের বিরুদ্ধে বিভিন্ন সময়ে পত্রপত্রিকায় সংবাদ প্রকাশ হয়েছে।