একসঙ্গে ৪ পুত্র সন্তান প্রসব, মারা গেছে একজন

::আব্দুল জব্বার, বসুন্দিয়া::

যশোর সদর উপজেলার ঘুনি নাথপাড়ার গৃহবধূ ফিরোজা বেগম (৩৬) একসঙ্গে ৪ পুত্র সন্তান প্রসব করেছেন। এরমধ্যে এক নবজাতক মারা গেছে। অন্য তিনজন যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালের শিশু ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন।

তাদের একনজর দেখতে ওয়ার্ডে ভিড় করছেন অন্য রোগীর স্বজনেরা। প্রসূতি ফিরোজা বেগম চিকিৎসাধীন রয়েছেন বসুন্দিয়ার মহুয়া সার্জিক্যাল ক্লিনিকে।

ফিরোজার বোন সাদিয়া খাতুন জানান, ঘুনি নাথপাড়ার আব্দুল খালেকের স্ত্রী ফিরোজা বেগমের বৃহস্পতিবার ভোরে বৃষ্টির সময় নিজ বাড়িতে প্রসব বেদনা শুরু হয়। ওই সময় তাকে নিয়ে যাওয়া হয় মহুয়া সার্জিক্যাল ক্লিনিকে। সেখানে ভর্তির কিছু সময় পরই একটি মৃত সন্তান প্রসব করেন তিনি। এরপর আরো তিনটি ছেলে সন্তান প্রসব হয়।

সাদিয়া খাতুন আরো জানান, অন্তঃসত্ত্বা হওয়ার পর ফিরোজার আল্ট্রাসনো করানো হয়েছিলো মহুয়া ক্লিনিক থেকে। রিপোর্টে বলা হয়েছিলো তার গর্ভে জমজ সন্তান রয়েছে। কিন্তু একে একে ৪ সন্তান প্রসব হলো।

মহুয়া সার্জিক্যাল ক্লিনিকের পরিচালক খলিলুর রহমান জানান, শিশু ডাক্তার না থাকার কারণে তিন নবজাতকের চিকিৎসার জন্য যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

শিশু ওয়ার্ডে দায়িত্বরত সেবিকা জানান, তিনটি নবজাতকের ওজন যথাক্রমে ১ কেজি ২শ’, ১ কেজি ৩শ’ ও ১ কেজি ৪শ’ গ্রাম। তাদের চিকিৎসাসেবা চলছে।

হাসপাতালের শিশু বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত চিকিৎসক সহকারী অধ্যাপক সুদেশ কুমার দিক্ষিত জানান, ৮মাসে ভূমিষ্ঠ হওয়ায় পুষ্টিহীনতার কারণে নবজাতকগুলো শারীরিকভাবে দুর্বল। তাদের উন্নত চিকিৎসার জন্য খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দেয়া হয়েছে।

আব্দুল খালেক জানান, বর্তমানে তার স্ত্রী প্রসূতি ফিরোজা সুস্থ আছেন। সন্তানদের চিকিৎসা আপাতত যশোর হাসপাতালে করাবেন বলেও জানান।