যশোর শহরের চারটি সড়ক চার ও ছয়লেনে উন্নীত করা হবে

::প্রেসবিজ্ঞপ্তি::

যশোর পৌরসভার মেয়র জহিরুল ইসলাম চাকলাদার রেন্টু বলেছেন, শহরের প্রতিটি প্রধান সড়ক উন্নয়নের কাজ শেষের পথে, এরপর বাইলেনের কাজ শুরু হবে। এছাড়া মণিহার থেকে মুড়লী পর্যন্ত সড়কটি ৬ লেনে এবং রেল রোড, বিমান বন্দর রোড, মুজিব সড়ক থেকে চাঁচড়া পর্যন্ত ৪ লেনে উন্নীত করা হবে। অল্প কিছুদিনের মধ্যে যশোরবাসী শহরটিকে আধুনিক শহর হিসেবে দেখতে পাবে।

তিনি বলেন, শহরের ড্রেনগুলি নিয়মিত পরিস্কার করা হচ্ছে কিন্তু শহরের কিছু লোকের অসচেতনতার কারণে সেগুলি ধরে রাখা যাচ্ছে না। ড্রেনে সব সময় পানি চলাচলের জন্য পৌরসভার পাশাপাশি এলাকাবাসীকেও তাদের নাগরিক দায়িত্ব পালনে সচেতন ও যত্নশীল হওয়ার অনুরোধ জানান তিনি। এখনো পৌর এলাকার বেশ কিছু উন্নয়ন কার্যক্রম চলমান রয়েছে। বর্ষা শেষ হলে আরো বেশ কিছু বাইলেনের কাজ শুরু হবে। সেগুলি শেষ হলে যশোরবাসীর আর কোনো সমস্যা থাকবে না।

বৃহস্পতিবার দুপুরে মেয়রের সভাকক্ষে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি)’র অনুপ্রেরণায় গঠিত সচেতন নাগরিক কমিটি (সনাক), যশোরের সাথে ‘পৌরসভার সেবার মানোন্নয়নে করণীয়’ শার্ষক এক মতবিনিময় সভায় তিনি একথা বলেন।

তিনি আরো বলেন, পৌরবাসীর ভোগান্তি লাঘবে শহরে চলাচলের জন্য এক এলাকা থেকে অন্য এলাকার রিকসা ভাড়া কত হবে তা নির্ধারণের কাজ চলছে। এটি অচিরেই সকলের জন্য প্রকাশ করা হবে। এটি হলে নগরবাসী বেশ অনেকটা উপকৃত হবে বলে আমরা বিশ^াস করি। এছাড়া যশোরের ৬টি বস্তি উন্নয়নের জন্য বরাদ্দ দেয়া হয়েছে এবং আরো ২টি বস্তি উন্নয়নের বরাদ্দ দেয়া হবে।

মেয়র জহিরুল ইসলাম চাকলাদার রেন্টুর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভা সঞ্চালনা করেন সনাক সভাপতি অধ্যাপক সুকুমার দাস। সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য দেন কাউন্সিলর শেখ রোকেয়া পারভীন ডলি, শেখ মোকছিমূল বারী অপু, সনাক সদস্য অধ্যাপক ড. মুস্তাফিজুর রহমান, আলহাজ শেখ গোলাম ফারুক, আব্দুল মালেক, অ্যাড. মোয়াজ্জেম হোসেন টুলু, অ্যাড. প্রশান্ত দেবনাথ প্রমুখ। সভা উপস্থাপনা করেন টিআইবি’র এরিয়া ম্যানেজার এএইচএম আনিসুজ্জামান।