যশোরে মিড ডে মিলে বাড়ির খাবার খাবে শিক্ষার্থীরা

::মিরাজুল কবীর টিটো::

যশোরের ৫০টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে চালু হয়েছে মিড ডে মিল। গতকাল যশোর কালেক্টরেট সভাকক্ষে অনুষ্ঠিত জেলা সমন্বয় কমিটির সভায় এ তথ্য জানানো হয়।

জেলা শিক্ষা অফিসার আব্দুল খালেক জানান, শনিবার থেকে জেলার ৮ উপজেলার ৫০ টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে মিট ডে মিল চালু করা হয়েছে। তবে অধিকাংশ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা বাড়ি থেকে টিফিন বক্সে করে খাবার এনে বিদ্যালয়ে বসে খাবে। সেটাকে মিড ডে মিল বলা হচ্ছে।

বিদ্যালয়গুলো হচ্ছে, যশোর সদরের মুসলিম একাডেমি, নিউটাউন বাদশাহ ফয়সল ইসলামী ইন্সটিটিউট, ইসলামিয়া বালিকা বিদ্যালয়, আদর্শ বালিকা বিদ্যালয়, রূপদিয়া ওয়েল ফেয়ার একাডেমি, রূপদিয়া শহীদ স্মৃতি বালিকা বিদ্যালয়, মুন্সী মেহেরুল্লাহ একাডেমি, নারাঙ্গালী সম্মিলিত মাধ্যঃমিক বিদ্যালয়, বাঘারপাড়ার ভিটাবল্যা মাধ্যমিক বিদ্যালয়, বন্দবিলা বিজয় চন্দ্ররায় মাধ্যমিক বিদ্যালয়, অভয়নগরের নওয়াপাড়া পাইলট বালিকা বিদ্যালয়, নওয়াপাড়া মডেল মাধ্যমিক বিদ্যালয়, কেশবপুরের বুড়িহাটি মাধ্যমিক বিদ্যালয়, সাগরদাঁড়ি এসএম ইন্সটিটিউট, শার্শার বেনাপোল মাধ্যমিক বিদ্যালয়, বাগআঁচড়া ইউনাইটেড মাধ্যমিক বিদ্যালয়, বুরুজ বাগান মাধ্যমিক বিদ্যালয়, বুরুজবাগান পাইলট বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়, আগআঁচড়া সম্মিলিত গালর্স স্কুুল এন্ড কলেজ, ঝিকরগাছার পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, বিএম মাধ্যমিক বিদ্যালয়, চৌগাছার পাতিবিলা হাজী শাহজান মাধ্যমিক বিদ্যালয়, সম্মিলনী মাধ্যমিক বিদ্যালয়, সিংহঝুলি শহীদ মসিয়ুর রহমান মাধ্যমিক বিদ্যালয়, শাহাদাৎ পাইলট মডেল মাধ্যমিক বিদ্যালয়, মাড়–য়া ইউসুপ খান স্কুল এন্ড কলেজ, মণিরামপুরের কুয়াদা মাধ্যমিক বিদ্যালয়, বাগডাঙ্গা দোহাকুলা মাধ্যমিক বিদ্যালয়, কুশখালী আসননগর মাধ্যমিক বিদ্যালয়, সুন্দলপুর সম্মিলনী মাধ্যমিক বিদ্যালয়, মণিরামপুর আদর্শ সম্মিলনী মাধ্যমিক বিদ্যালয়সহ ৫০ টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়।

জেলা শিক্ষা অফিসার আব্দুল খালেক জানান মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে মিড ডে মিল চালুর জন্য দুটি নিয়ম দেয়া হয়েছে। একটি হচ্ছে শিক্ষার্থীরা বাড়ি থেকে খাবার এনে বিদ্যালয়ে বসে খাবে।

আরেকটি হচ্ছে প্রতি শিক্ষার্থীর কাছ থেকে মিড ডে মিলের জন্য ১০০ টাকা করে নিতে হবে। তবে মিড ডে মিলের খাবার দেয়ার জন্য ১০০ টাকা যথেষ্ট নয়। তাই শিক্ষার্থীদের বাড়ি থেকে খাবার এনে বিদ্যালয়ে বসে খেতে বলা হয়েছে।