বিয়ের প্রলোভনে কলেজছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ, প্রেমিকসহ আটক ৩

::নিজস্ব প্রতিবেদক::

প্রেমের সম্পর্ক গড়ে বিয়ের প্রলোভনে যশোর সরকারি মহিলা কলেজের এক শিক্ষার্থীকে ধর্ষণের অভিযোগে প্রেমিক নাজিমসহ তিনজনকে আটক করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার রাতে ধর্ষণের অভিযোগ এনে অনার্স তৃতীয় বর্ষের ওই শিক্ষার্থী কোতয়ালি থানায় প্রেমিক নাজিম উদ্দিনসহ ৪ জনকে আসামি করে একটি মামলা করেন।

আটক নাজিম উদ্দিন ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলার আড়ুয়া শলুয়া গ্রামের আলাল উদ্দিনের ছেলে।

অপর আসামিরা হলেন, প্রেমিকের পিতা আলাল উদ্দিন, ঝিনাইদহের ওয়াসিম আক্তার ও যশোর শহরের রেল রোডস্থ আদ্-দ্বীন হাসপাতালের বিপরীতে ডা. আহসান কবিরের বাড়ির ভাড়াটিয়া আতিক হাসান। পুলিশ নাজিমের পিতা আলাল ও আতিক হাসানকে আটক করেছে।

এজাহারে ওই শিক্ষার্থী অভিযোগ করেছেন, নাজিম উদ্দিনের সাথে তার দীর্ঘদিনের প্রেমের সম্পর্ক ছিল। এরই সুযোগ নিয়ে ২০১৮ সালের ১ জুলাই থেকে চলতি বছরের ১ জুন পর্যন্ত বিভিন্ন সময় নাজিম উদ্দিনের রেল রোডস্থ আতিক হাসানের বাড়িতে নিয়ে যান। সেখানে নিয়ে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে একাধিকবার ধর্ষণ করে নাজিম। পরে বিয়ের জন্য চাপ সৃষ্টি করলে নাজিম উদ্দিন নানা তালবাহনা করতে থাকে। আজ না কাল বলে ঘুরাতে থাকে।

এ বিষয়টি নিয়ে গত ৮ আগস্ট পারিবারিকভাবে অন্যান্য আসামিদের সাথে বৈঠক করে একটি আপস মীমাংসা হয়। সেখানে সিদ্ধান্ত হয় যে, এক সপ্তাহের মধ্যে নাজিম উদ্দিনের সাথে তার বিয়ে দেয়ার ব্যবস্থা করবেন। কিন্তু এক মাসের বেশি সময় পার হয়ে গেলেও বিয়ে হয়নি।

বর্তমানে আসামিরা এ নিয়ে তালবাহনা করছে। আর নাজিমও এ বিষয়ে কোন টু শব্দ করছে না। ফলে তিনি কোতয়ালি থানায় প্রেমিক নাজিমের বিরুদ্ধে ধর্ষণের আইনে অভিযোগ দিলে তা মামলা হিসাবে রেকর্ড হয়।