দেশ স্বাধীন করেছেন বঙ্গবন্ধু আর সুশাসন প্রতিষ্ঠা করছেন কন্যা শেখ হাসিনা: শেখ আফিল উদ্দিন এমপি

::শেখ কাজিম উদ্দিন, বেনাপোল::

যশোর-১ (শার্শা) আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ শেখ আফিল উদ্দিন বলেছেন, দেশ স্বাধীন করেছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আর সুশাসন প্রতিষ্ঠা করছেন বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। শনিবার বিকেলে শার্শায় জেলা পরিষদ অডিটোরিয়ামে আয়োজিত জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৩ তম জন্মদিন উদযাপন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে একথা বলেন তিনি।

শার্শা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা সিরাজুল হক মঞ্জুর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে শেখ আফিল উদ্দিন এমপি আরো বলেন, পাকিস্তান শাসনামলে বাঙালী জাতি ভাতের অধিকার থেকে শুরু করে শিক্ষা, চিকিৎসা, বাসস্থান, উচ্চ পদস্থ চাকরি, ব্যবসা বাণিজ্যসহ বিভিন্নভাবে নাগরিক সুবিধা থেকে বঞ্চিত ছিলো। পরে এদেশের মানুষকে পরাধীনতা থেকে মুক্ত করতে স্বাধীনতার ডাক দেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। তাঁর বলিষ্ঠ নেতৃত্বের কারণে বাঙালী জাতি মাত্র ৯ মাসের ব্যবধানে একটি স্বাধীন জাতি হিসেবে লাল সবুজের পতাকা অর্জন করে। কিন্তু এদেশের মানুষের সাথে মিশে থাকা পাকিস্তানি পরাজিত শত্রুরা তা মেনে নিতে পারেনি। তাই তারা বঙ্গবন্ধুর মতো মহামানবকে হত্যা করে। ওরা ভেবেছিল বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করতে পারলে সব শেষ হয়ে যাবে। ওরাই আবার লুটেপুটে খাবে বাংলাদেশকে। কিন্তু তাদের চেষ্টা বেশিদিন টিকে থাকেনি। দীর্ঘদিন পরে হলেও এদেশের মানুষ বঙ্গবন্ধুর রেখে যাওয়া আওয়ামী লীগকে প্রতিষ্ঠা করেন। পর্যায়ক্রমে বাংলাদেশের হাল ধরেন জাতির জনকের কন্যা তথা আজকের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

শার্শা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ নুরুজ্জামানের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে শেখ আফিল উদ্দিন এমপি আরো বলেন বঙ্গবন্ধু যেমন মাত্র ৯ মাসের ব্যবধানে বাঙালী জাতিকে স্বাধীন করেছিলেন তদ্রুপ বঙ্গবন্ধু কন্যা মাত্র তিন বারের প্রধানমন্ত্রী জীবনে বিএনপি-জামায়াতের সময়ের সেই হেনরী কিসিঞ্জারের উপমা তলা বিহীন বাংলাদেশকে বিশ্বের বুকে একটি মধ্যম আয়ের দেশে রুপান্তরিত করেছেন। তিনি চাইছেন বাংলাদেশে থাকবে সুশাসন। কেউ খাবে, কেউ খাবে না, তা হবে না। এখানে অপকর্মের কোনো সুযোগ নেই। কেউ যাতে আঙ্গুল তুলতে না পারে, তাই তিনি নিজের দল থেকেই শুদ্ধি অভিযান শুরু করেছেন। পর্যায়ক্রমে সকল দুর্নীতিবাজদের চিহ্নিত করে এদেশকে তিনি সুশাসনের রাষ্ট্রে পরিণত করবেন।

এ সময় তিনি দলীয় নেতা-কর্মীদের উদ্দেশ্য করে বলেন সকলে সাবধান। প্রধানমন্ত্রী যখন বলেছেন তখন এদেশে সুশাসন প্রতিষ্ঠিত হবেই। এছাড়া আমার এলাকায় কোনো মাদক বা জুয়ার আসর চলবে না। আর মাদকের ব্যবসার সাথে যদি কেউ জড়িত থাকেন তাহলে কোনভাবেই তাকে ছাড় দেয়া হবে না।

পরে দলীয় নেতা কর্মীদের নিয়ে খুবই আনন্দঘন পরিবেশের মধ্য দিয়ে ৭৩ পাউন্ডের কেক কেটে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৩ তম জন্মদিন পালন করেন।

শার্শা উপজেলা আওয়ামী লীগের আয়োজনে অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন যশোর জেলা আওয়ামী লীগের শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক আসিফ-উদ-দৌলা অলোক, শার্শা উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্মসম্পাদক ও যশোর জেলা পরিষদের সদস্য ইব্রাহিম খলিল, বেনাপোল পৌর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আলহাজ এনামুল হক মুকুল, সাধারণ সম্পাদক আলহাজ নাসির উদ্দিন, উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক ও শার্শা সদর ইউপি চেয়ারম্যান সোহরাব হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক ও উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মেহেদী হাসান, বেনাপোল ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ্ব বজলুর রহমান, উলাশী ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আয়নাল হক, বাগ আঁচড়া ইউপি চেয়ারম্যান ইলিয়াস কবির বকুল, কায়বা ইউপি চেয়ারম্যান হাসান ফিরোজ আহমেদ টিংকু, গোগা ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আব্দুর রশিদ, পুটখালী ইউপি চেয়ারম্যান হাদিউজ্জামান, বাহাদুরপুর ইউপি চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান, লক্ষণপুর ইউপি চেয়ারম্যান আনোয়ারা বেগম, নিজামপুর ইউপি চেয়ারম্যান আবুল কালাম আযাদ, ডিহি ইউপি চেয়ারম্যান হোসেন আলী, উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আব্দুর রহিম সরদার ও শার্শা উপজেলার ১১টি ইউনিয়ন এবং ১টি পৌর আওয়ামী লীগসহ সকল সহযোগী সংগঠনের সভাপতি-সম্পাদক ও নেতাকর্মীরা।