যশোরে চুরি মামলায় তিনজনের স্বীকারোক্তি

::নিজস্ব প্রতিবেদক::

যশোরে পৃথক চুরি মামলায় আটক তিনজন আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে। আসামিরা হলো- যশোর সদর উপজেলার রাজারহাট গ্রামের মৃত আনোয়ার হোসেনের ছেলে হিমেল হোসেন, খুলনা তেরখাদার আটলিয়া গ্রামের গোলজার সরদারের ছেলে মুজাহিদ হোসেন ও যশোর সদরের আরবপুর এলাকার শুকুর আলীর ছেলে আলাউদ্দিন।

শনিবার সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক শম্পা বসু আসামিদের জবানবন্দি গ্রহণ শেষে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়েছেন।

মামলার অভিযোগে জানা গেছে, গত ১৮ সেপ্টেম্বর যশোর সদরের বোলপুর গ্রামের সজিবের বাড়ি থেকে তার একটি মোটরসাইকেল ও মোবাইল চুরি হয়। এ ব্যাপারে তিনি কোতোয়ালি মডেল থানায় একটি মামলা করেন। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা চুরির সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে আলাউদ্দিন ও মুজাহিদ আটক করেন।

শনিবার তাদের আদালতে সোপর্দ করা হলে চুরির সাথে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে জবানবন্দি দেয়।

আলাউদ্দিন জবানবন্দিতে জানিয়েছে, সে মোটরসাইকেল চুরি করে নড়াইলের মতি মেম্বারের কাছে বিক্রি করে। অপর আসামি মুজাহিদ বলেন, মোটরসাইকেলটি সে নড়াইলের মতি মেম্বারের কাছ থেকে কিনেছে।

অপরদিকে, গত ২ সেপ্টেম্বর সদরের সুজলপুর এলাকার একটি বাড়ি থেকে গ্রিল কেটে ঘর থেকে মোবাইল, ল্যাপটপ ও নগদ টাকা চুরি করে নিয়ে যায় চোরেরা। এ ব্যাপারে বাড়ির মালিক সমির রায় অপরিচিত ব্যক্তিদের আসামি করে কোতোয়ালি মডেল থানায় চুরি মামলা করেন।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা চুরির সাথে জড়িত সন্দেহে হিমেলকে আটক করেন। গতকাল তাকে আদালতে সোপর্দ করলে চুরির সাথে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি দিয়েছে।

হিমেল জবানবন্দিতে জানিয়েছে, সে আলাউদ্দিনের কাছ থেকে ল্যাপটপ ও মোবাইল ক্রয় করেছে। পরে সে জানতে পারে আলাউদ্দিন ল্যাপটপ ও মোবাইল ফোন চুরি করে এনে বিক্রি করেছে।