যশোরে ট্রাকচালক সোহেল রানা হত্যায় আটজন অভিযুক্ত

::নিজস্ব প্রতিবেদক::

যশোর সদরের মুড়লির ট্রাকচালক সোহেল রানা হত্যা মামলায় আটজনকে অভিযুক্ত করে চার্জশিট দিয়েছে সিআইডি পুলিশ। হত্যার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগ না পাওয়ায় ২ জনের অব্যাহতির আবেদন করা হয়েছে।

মামলার তদন্ত শেষে আদালতে এ চার্জশিট জমা দিয়েছেন সিআইডি পুলিশের তদন্তকারী কর্মকর্তা পরিদর্শক হারুন অর রশিদ। অভিযুক্ত আসামিরা হলো- যশোর সদরের রামনগর খাপাড়ার মৃত আব্দুল মান্নানের জামাই ও সাতক্ষীরা কলারোয়ার ঝাউতলা গ্রামের নুর মোহাম্মদের ছেলে শাহিন হোসেন, আলী আহম্মেদের ছেলে আসাদুল, গোলাম মোস্তফার ছেলে শাহিন, রাজারহাট গ্রামের কালাম গাজীর ছেলে রাব্বি, মৃত বাচ্চু পকেটমারের ছেলে সাগর হোসেন, নিজাম উদ্দিনের ছেলে পাভেজ, যশোর শহরের রেলগেট পশ্চিমপাড়ার মজিবর রহমানের ছেলে সোহেল রানা ওরফে গেটম্যান সোহেল ও বেজপাড়া কবরস্থান রোডের মৃত ইউনুস মোল্লার ছেলে রাসেল মোল্লা।

মামলায় অভিযোগে জানা গেছে, ২০১৮ সালের ২৬ জুলাই রাত ১০টার দিকে আসামি শাহিন, আসাদুল ও আল-আমিন তার ছেলে সোহেল রানাকে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে যায়। সোহেল রানা বাড়ি না ফেরায় খোঁজাখুঁজি করে তাকে উদ্ধারে ব্যর্থ হয় স্বজনরা।

পরদিন সকালে রামনগর খাপাড়া রেললাইনের পাশে সোহেল রানার একটি স্যান্ডেল ও রক্ত দেখে স্থানীয়রা। এরপর মুড়লির একটি পরিত্যক্ত টায়ার রি-রোলিং কারখানার আঙিনা থেকে মাটিচাপা অবস্থায় তার লাশ উদ্ধার করা হয়।

এ ব্যাপারে নিহতের মা খালেদা বেগম বাদী হয়ে ৮ জনের নাম উল্লেখসহ অপরিচিত ব্যক্তিদের আসামি করে কোতোয়ালি মডেল থানায় একটি হত্যা মামলা করেন। মামলাটি প্রথমে থানা পুলিশ পরে সিআইডি পুলিশ তদন্তের দায়িত্ব পায়।

তদন্ত সূত্রে জানা গেছে, নিহত সোহেল রানা পুলিশের সোর্স হিসেবে কাজ করতো। সে নিজে মাদক ব্যবসা ও সেবন করতো। সে মাঝে মধ্যে এলাকায় এসে আসামিদের পুলিশ দিয়ে ধরিয়ে দিতো। চার্জশিটভুক্ত আসামি সোহেল ওরফে গেটম্যান সোহেলকে পুলিশ আটক করে। সকলের সন্দেহ হয় সোহেল রানা তাকে ধরিয়ে দিয়েছে। এরপর আসামিরা সোহেলকে হত্যার পরিকল্পনা করে। ঘটনার দিন রাতে তাকে বাড়ি থেকে ডেকে রেললাইনের উপর নিয়ে প্রথমে ছুরিকাঘাত ও হাত-পায়ের রগ কেটে হত্যার পর মাটিচাপা দিয়ে রাখে আসামিরা।

এ মামলার তদন্ত শেষে আটক আসামিদের দেয়া তথ্য ও স্বাক্ষীদের বক্তব্যে হত্যার সাথে জড়িত থাকায় ওই ৮ জনকে অভিযুক্ত করে আদালতে এ চার্জশিট দিয়েছেন তদন্তকারী কর্মকর্তা। হত্যার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগ না পাওয়ায় তরিকুল ইসলাম ও বিল্লাল হোসেনের অব্যাহতির আবেদন করা হয়ছে। চার্জশিটে অভিযুক্ত পারভেজ, সাগর হোসেন ও সোহেল রানা ওরফে গেটম্যান সোহেল রানাকে পলাতক দেখানো হয়েছে।