টানা ৮ দিনের ছুটির ফাঁদে বেনাপোল স্থলবন্দর

✍ নিজস্ব প্রতিবেদক

সনাতন ধর্মাবলম্বীদের ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা ও বাংলাদেশে সাপ্তাহিক ছুটির কারণে টানা আটদিনের ছুটির ফাঁদে বেনাপোল স্থলবন্দর। এতে দুই দেশের মধ্যে সব ধরণের পণ্য আমদানি-রফতানি বন্ধ থাকবে।

ভারতের পেট্রাপোল বন্দর সিঅ্যান্ডএফ এজেন্টস স্টাফ ওয়েল ফেয়ার অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক কার্তিক চক্রবর্তী জানান, দুর্গাপূজা উপলক্ষে ভারতে ৪ অক্টোবর থেকে ১০ অক্টোবর পর্যন্ত সরকারি ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে।

যে কারণে বৃহস্পতিবার বিকেল থেকে বন্ধ আমদানি-রফতানি। টানা আটদিন ছুটি থাকায় এ সময় পেট্রাপোল-বেনাপোল বন্দর দিয়ে আমদানি-রফতানি বাণিজ্য বন্ধ থাকবে। আগামী ১২ অক্টোবর সকাল থেকে আমদানি-রফতানি বাণিজ্য সচল হবে।

বেনাপোল সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের সহসভাপতি মো. নূরুজ্জামান ও বেনাপোল কাস্টমের সহকারী কমিশনার উত্তম চাকমা বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, ওপারে সরকারি ছুটি থাকায় বৃহস্পতিবার বিকেল থেকে দুই দেশের মধ্যে আমদানি-রফতানি বন্ধ হয়ে গেছে। ৩ অক্টোবর থেকে ১১ অক্টোবর পর্যন্ত এ পথে পণ্য যাওয়া-আসা বন্ধ থাকবে বলে পেট্রাপোলের কাস্টম কর্তৃপক্ষ ও সিঅ্যান্ডএফ এজেন্টরা আমাদের জানিয়েছেন।

তবে আমদানি-রফতানি বন্ধ থাকলেও বন্দরে লোড-আনলোড ও কাস্টমসে কাজ চলবে। ১২ অক্টোবর সকাল থেকে পুনরায় এ পথে আমদানি-রফতানি শুরু হবে।

বেনাপোল চেকপোস্ট ইমিগ্রেশন পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মহসিন খান বলেন, ছুটিতে বেনাপোল স্থলবন্দর দিয়ে আমদানি-রফতানি বন্ধ থাকলেও স্বাভাবিক থাকবে পাসপোর্টধারী যাত্রীদের যাতায়াত।

প্রসঙ্গত, ভারত থেকে আমদানিকৃত পণ্যের ৯০ ভাগই আসে বেনাপোল বন্দর দিয়ে। প্রতিদিন এ স্থলবন্দর দিয়ে ভারত থেকে প্রায় সাড়ে ৩০০ পণ্য বোঝাই ট্রাক আসে। এরমধ্যে শিল্পপ্রতিষ্ঠানের কাঁচামালের পাশাপাশি বিভিন্ন খাদ্যদ্রব্য আসে। মাত্র সাত দিনের এলসিতে পণ্য আনা যায় এ বন্দর দিয়ে। বেনাপোল চেকপোস্ট থেকে কলকাতা মাত্র ৮১ কিলোমিটার। যে কারণে ব্যবসায়ীরা পণ্য আমদানির জন্য বেনাপোল বন্দর ব্যবহার করে থাকেন।

টানা ৮ দিন আমদানি-রফতানি বন্ধ থাকায় এর প্রভাব বাজারেও পড়ার আশঙ্কা করছেন বন্দর ব্যবহারকারীরা।