যশোরে চেয়ারম্যান মুন্নার অত্যাচারে অতিষ্ঠ এক পরিবার

✍ নিজস্ব প্রতিবেদক

যশোর সদরের চুড়ামনকাঠি ইউনিয়নের চেয়ারম্যানের অত্যাচারে অতিষ্ঠ একটি পরিবার। এরমধ্যে চেয়ারম্যান ও তার সন্ত্রাসী বাহিনী এ পরিবারের ছেলে রুনুকে হত্যার চেষ্টা ও একের পর এক মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করেছে। বৃহস্পতিবার প্রেসক্লাব যশোরে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে এ অভিযোগ করে রুনুর মা রুবিয়া বেগম।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন রেবেকা বেগম, মাসুদ রানা, রায়হান উদ্দিন রানা প্রমুখ।

লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, আমার স্বামী মোফাজ্জেল হোসেন শ্রমিকলীগের অর্থ সম্পাদক ও চুড়ামনকাঠি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের যুগ্মসাধারণ সম্পাদক। দুই ছেলে রুনু সদর উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক কমিটির সদস্য ও রানু ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি।

চুড়ামনকাঠি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুল মানান মুন্না এলাকার কুখ্যাত সন্ত্রাসী। তার সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডে এলাকার মানুষ অতিষ্ট। সে নিজে এক সময় চুরি, ডাকাতি, ছিনতাই, চাঁদাবাজি করে বেড়াতো। তার ছিল মাদকের কারবার। বর্তমানে তার এসব চালাচ্ছে কুষ্টিয়ার আলম। কুখ্যাত শরিফুল বাহিনীর সদস্য মহিউদ্দিন মহি তার টেন্ডারবাজীর কাজে সহযোগিতা করছে। চেয়ারম্যান চুড়ামনকাঠি হাটের ইজারা নিয়ে গাছ বিক্রি, নতুন দোকান তৈরি করে লাখ-লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। এছাড়া বিভিন্ন বিচারের নামে নিরীহ মানুষদের কাছ থেকে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে চেয়ারম্যান। বর্তমানে ইউনিয়নের আওয়ামী লীগের লোকজন তার কাছে জিম্মি হয়ে পড়েছে।

তিনি বলেন, চেয়ারম্যানের এসব কাজের প্রতিবাদ করায় রুনু তার রোশানলের শিকার। সভা সমাবেশের জন্য রুনু লোকজন ডাকলে চেয়ারম্যান মুন্না পুলিশের কাছে তার বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ দেয়।

আমার ছেলে রুনুকে চেয়ারম্যান ও তার লোকজন কুপিয়ে হত্যা চেষ্টা করেছিল। এরপর তার বিরুদ্ধে একের পর এক মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করছে। তিনি এ অবস্থার প্রতিকার চেয়ে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছন।